টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বাঙ্গালী নারী ধষর্ণের ঘটনায় মানিকছড়িতে অবরোধ চলছে

অবদুল মান্নান
মানিকছড়ি (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি 

jচট্টগ্রাম, ২৮ নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: সম্প্রতি মানিকছড়ির কুমারীর ডেবাতলীর নির্জন পাহাড়ে উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক বাঙ্গালী নারী গণধর্ষণের ঘটনায় অপরাধীদের গ্রেপ্তারের দাবীতে আজ দিনব্যাপি চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কে (মানিকছড়িতে) অবরোধ পালন করছে বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ। পিকেটারদের সাথে তিনটহরী গুচ্ছগ্রামে বসবাসরত কুমারীর লোকজন ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে। এদিকে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহি গাড়ী পুলিশ প্রহরায় জেলা শহরে প্রবেশ করছে। রাস্তায় পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, উপজেলার নির্জন জনপদ কুমারী মৌজার ডেবাতলীতে গত ১৭ নভেম্বর রাতে জনৈক শফি চৌধুরীর বাগানের পাহারাদার (নৈশ প্রহরী) মো. এমদাদুল হকের দ্বিতীয় স্ত্রী(৩০)কে রাতে ঘর থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে পার্শ্ববতী জঙ্গলে গণধর্ষণ করেছে উপজাতি সন্ত্রাসীরা। ফলে ধর্ষীতা গত ১৮ নভেম্বর রাতে ওই ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ৮/১০জন উপজাতিকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। এদিকে পুলিশ ওই ঘটনার পর থেকে আসামীদের সনাক্তসহ অপরাধীদের ধরতে একাধিক অভিযান পরিচালনা করলেও গত ১০ দিনেও কেউ গ্রেপ্তার হয়নি। যার ফলে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের মানিকছড়ি শাখা এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রæত গ্রেপ্তার পূর্বক অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার দাবীতে আজ সোমবার ২৮ নভেম্বর উপজেলার সকাল-সন্ধ্যা অবরোধ পালন করেছে।

ওই ঘটনার পরপর বিষয়টিকে নিয়ে কেউ যেন পাহাড়ী-বাঙ্গালীর মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করতে না পারে সে জন্য ওই দিন বিকালে কুমারী এলাকায় একটি শান্তি বৈঠকের আয়োজন করেন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম। বৈঠকে উপস্থিত পাড়া প্রধান, কার্বারী, মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

মানিকছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিব জানান, ঘটনার পরপর ধর্ষীতার অভিযোগের প্রেক্ষিতে অজ্ঞাতনামা ৮/১০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের হয়েছে। যেহেতু ধর্ষীতা নিদিষ্ট করে কাউকে সনাক্ত করতে পারছেনা, তাই অপরাধীদের চিহ্নিত করতে পুলিশ জোর চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছে। অবরোধে যেন জনদুভোর্গ না হয় সে জন্য পুলিশ সর্তক রয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত