টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চবির শাটল ট্রেন বন্ধ, ছেড়ে দেওয়া হয়েছে চবি শিক্ষকবাসের চালককে

 চট্টগ্রাম, ২৪  নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: প্রায় আড়াই ঘণ্টা আটকে রাখার পর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের একটি বাসের চালককে ছেড়ে দিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) সকাল আটটার দিকে নগরীর জামতল থেকে তাকে অপহরণ করা হয়েছিল। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর থেকেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে তার অনুসারী ছা্ত্রলীগ কর্মীরা। এর ফলে গত দুইদিন শিডিউল বিপর্যয়ের শিকার হতে হয়েছে শাটল ট্রেনকে।

এর পাশাপাশি ট্রেনে ভাঙচুর ও ট্রেন সংশ্লিষ্টদের তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টাও করেছে দিয়াজের অনুসারী নেতাকর্মীরা। তাই নিরাপত্তার স্বার্থে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাটল ট্রেন চলাচল বন্ধ রেখেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

ষোলশহর স্টেশন মাস্টার শাহাবুদ্দিন বলেন, গত দুই দিনের ঘটনা প্রবাহে রেলের নিরাপত্তার স্বার্থে আমরা ট্রেন চলাচল বন্ধ রেখেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবারো চলাচল শুরু করবে।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ও আমরা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবু কাইজার রনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান দিয়াজ ভাই আত্মহত্যা করতে পারেন না। এ ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আমরা মানি না। যতদিন পর্যন্ত সুষ্ঠু তদন্ত হবে না ততদিন আন্দোলন চলতে থাকবে।

এদিকে সকাল থেকে ট্রেন চলাচল না করায় বিশ্ববিদ্যালয়গামী হাজারো শিক্ষার্থীরা দুর্ভোগে পড়েছে। অনেক বিভাগেত পূর্ব নির্ধারিত ক্লাস পরীক্ষা থাকায় তাদের বিকল্প উপায়ে বাসে যেতে হচ্ছে। এ সুযোগে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

ষোলশহর স্টেশনে এসে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে এমন খবরে বাস করে যাওয়ার সিদ্বান্ত নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাহমিদা আলম। কিন্তু এতে বাঁধ সাধে অতিরিক্ত ভাড়া।

এসময় কথা হয় এ শিক্ষার্থীর। তিনি বলেন, স্বাভাবিক সময়ে ষোলশহর থেকে বিশ্ববিদ্যালয় যেতে যে ভাড়। নেয়া হয় এখন তার দ্বিগুণ নেয়া হচ্ছে। এতে আমাদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে। অনেকটা জিম্মি তাদের কাছে। কেউই যেন দেখার নেই।

এর আগে শহর থেকে শিক্ষক দের আনতে যাওয়ার পথে ‘চট্টমেট্রো-ট ১১০৭’ শিক্ষক বাসের মাসুদ ও মনির নামের এক চালক ও তার সহযোগীকে তুলে নিয়ে গেছে কিছু দুর্বৃত্ত। ফতেয়াবাদের জামতল এলাকায় সকাল ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এসময় তারা আরো ৫-৬টি বাসের চাবিও নিয়ে নেয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন দপ্তরের প্রশাসক ড. শফিউল আযম বলেন, ওই চালক ও সহযোগীর সাথে আমার মোবাইলে কথা হয়েছে তারা সুস্থ আছে। তাদের এক জায়গায় বসিয়ে রেখেছে দুর্বৃত্তরা। পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত শহর থেকে কোন শিক্ষক বাস বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে নি।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী বলেন, আমি ব্যস্ত আছি। ট্রেন বন্ধ থাকার বিষয়টি জানি না। তবে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত