টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রানের পাহাড় ডিঙিয়ে জয় চিটাগাংয়ের

চট্টগ্রাম, ২১  নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):   রানের পাহাড় গড়েও সিংহাসন সংরক্ষিত রাখতে পারলো না কুমিল্লা। সিংহাসনচুত্য হতেই হলো। শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ নবীর ব্যাটে কাঙ্খিত জয় তুলে নিলো চিটাগাং ভাইকিংস।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএলে) নিজেদের তৃতীয় জয় তুলে নিল চিটাগং ভাইকিংস। ১৮৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ছয় উইকেটের জয় পায় তামিম ইকবালের চিটাগং। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের করা ১৮৩ রানের পর চার উইকেট হারিয়ে ও চার বল বাকি থাকতে জয় পায় দলটি। আর টুর্নামেন্টে মাশরাফি বিন মর্তুজার কুমিল্লার সাত ম্যাচে এটি ষষ্ঠ হার।

চিটাগংয়ের জয়ে অবদান রাখেন দলের টপঅর্ডার সব ব্যাটসম্যান। তবে শেষ দিকে ২৪ বলে পাঁচ চার ও দুই ছক্কায় ৪৬ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জয় এনে দেন মোহাম্মদ নবী। ছক্কা হাঁকিয়েই জয় উদযাপন করেন তিনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৮ রান আসে শোয়েব মালিকের ব্যাট থেকে। কুমিল্লার হয়ে সর্বোচ্চ দুটি উইকেট পান রায়ান টেন ডয়েসকাটে।

এর আগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ২২তম ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভার শেষে তিন উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রান করে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৭৬ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেন ওপেনার খালিদ লতিফ। এছাড়া অপরাজিত ৪০ রান করেন আহমেদ শেহজাদ।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় কুমিল্লা। দলীয় পঞ্চম ওভারে ওভারের প্রথম বলে ১৫ বলে ১৭ রান করা নাজমুল হাসান শান্তকে সরাসরি বোল্ড করেন চিটাগংয়ের ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ।

১৩তম ওভারে ইমরুল কায়েসকে রান আউটের ফাঁদে ফেলে চিটাগং। তার ব্যাট থেকে আসে ৩৬ রান। একই ওভারে অবশ্য দলীয় শতরান পূর্ণ করে কুমিল্লা। ১৪তম ওভারে দারুণ খেলতে থাকা খালিদ লতিফ তুলে নেন অর্ধশতক। শেষ পর্যন্ত ৫৩ বলে ছয় চার ও পাঁচটি ছক্কায় ৭৬ রান করেন ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে চিটাগাংয়ের হয়ে ওপেনিংয়ে নামেন তামিম ইকবাল এবং ডোয়াইন স্মিথ। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে স্মিথকে ফিরিয়ে দেন মাশরাফি। ১২ বলে ৫টি চারে ২১ রান করে ম্যাশের বলে এলবির ফাঁদে পড়েন স্মিথ। দলীয় ২৮ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় চিটাগং। পঞ্চম ওভারে দলীয় অর্ধশতক আসে চিটাগংয়ের।

দশম ওভারের শেষ বলে দারুণ খেলতে থাকা ওপেনার তামিম ইকবালকে সরাসরি বোল্ড করেন কুমিল্লার পেসার রায়ান টেন ডয়েসকাটে। ২৭ বলে এক চার ও এক ছয়ে ৩০ রান করেন চিটাগং অধিনায়ক। ১২তম ওভারে ডয়েসকাটের দ্বিতীয় শিকার হন আনামুল। ৩০ বলে দুই চার ও দুই ছয়ে ৪০ রান করা আনামুলকেও বোল্ড করেন কুমিল্লা পেসার। শোয়েব মালিক বোল্ড হয়ে ফেরেন। তাকে আউট করেন সোহেল তানভির।

১২তম ওভারেই দলীয় শতক পূর্ণ করে চিটাগং ভাইকিংস।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: ২০ ওভারে ১৮৩/৩ (নাজমুল হোসাইন শান্ত ১৭, খালিদ লতিফ ৭৬, ইমরুল কায়েস ৩৬, আহমেদ শেহজাদ ৪০*, রায়ান টেন ডয়েসকাটে ৯*; সোয়েব মালিক ০/১৬, আব্দুর রাজ্জাক ০/২৮, মোহাম্মদ নবী ০/৩৫, তাসকিন ১/৪৪, শহিদুল ইসলাম ০/৩৭, ইমরান খান ০/২১)

চিটাগাং ভাইকিংস: ১৯.২ ওভারে ১৮৬/৪ (তামিম ইকবাল ৩০, ডোয়েন স্মিথ ২১, এনামুল হক বিজয় ৪০, শোয়েব মালিক ৩৮, মোহাম্মদ নবী ৪৬*, জহুরুল ইসলাম ১*; হাবিবুর রহমান ০/১৮, সোহেল তানভীর ১/৩৩, মাশরাফি বিন মর্তুজা ১/৩৪, মোহাম্মদ শরীফ ০/৩২, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ০/৪০, নাজমুল হোসাইন শান্ত ০/১৩, রায়ান টেন ডয়েসকাটে ২/১৫)

ম্যাচের ফলাফল: চিটাগাং ভাইকিংস ৬ উইকেটে জয়ী
ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মোহাম্মদ নবী (চিটাগাং ভাইকিংস)

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত