টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামে এক বছর ধরে বিকল সাড়ে চার হাজার টেলিফোন

প্রধান প্রতিবেদক
সিটিজি টাইমস ডটকম

telephoneচট্টগ্রাম, ১৪ নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  চট্টগ্রাম মহানগরীর সরকারি টেলিযোগাযোগ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) সাড়ে চার হাজার টেলিফোন (ল্যান্ডফোন) গত এক বছর ধরে বিকল হয়ে পড়ে আছে। কবে নাগাদ এই সমস্যার সমাধান হবে তার সঠিক কোন নিশ্চয়তাও দিতে পারছেন না বিটিসিএলের কর্মকর্তারা।

বিটিসিএল সূত্র জানায়, গত ৮ ডিসেম্বর থেকে মুরাদপুর ও পাহাড়তলী এক্সচেঞ্জের আওতাধীন ২৫৫ ও ২৫৬ নম্বর দিয়ে শুরু হওয়া টেলিফোনগুলো বিকল হয়ে গেছে। নগরের খুলশী, ফয়সলেক, মোহাম্মদপুর, খাজা রোড, বহদ্দারহাট, শুলকবহর, কাতালগঞ্জ, পাঁচলাইশ ও নাসিরাবাদ এলাকার গ্রাহকেরা এ দুই এক্সচেঞ্জের আওতাধীন। টেলিফোন বিকল থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে গ্রাহকদের।

বিটিসিএলের কর্মকর্তারা জানান, ল্যান্ডফোনের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য ২০০৪-২০০৫ অর্থবছরে নগরের বিভিন্ন এলাকায় এক্সচেঞ্জ বসানোর কাজ করে কোরিয়ান টেলিকমিউনিকেশন নামের একটি প্রতিষ্ঠান। তাদের বসানো এক্সচেঞ্জ কেটি এক্সচেঞ্জ নামে পরিচিত। মাঝেমধ্যেই এসব এক্সচেঞ্জে সমস্যা দেখা দেয়। মুরাদপুর ও পাহাড়তলীর কেটি এক্সচেঞ্জের নম্বরগুলো ২৫৫ ও ২৫৬ দিয়ে শুরু হয়েছে।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বিটিসিএলের চট্টগ্রাম অঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক তমাল নন্দী বলেন, সমস্যাটি নিয়ে আমরা চিন্তিত। স্থানীয় প্রকৌশলীদের দিয়ে সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু সম্ভব হয়নি। এক্সচেঞ্জ সচল করার জন্য কোরিয়ার প্রকৌশলীদের সহযোগিতা দরকার। এ জন্য প্রধান কার্যালয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। তাতে সাড়া মেলেনি এখনও।

বিটিসিএল সূত্র জানায়, লাইন সচল করতে না পারায় গ্রাহকেরা প্রতিনিয়ত অভিযোগ জানাচ্ছেন। এসব এলাকার কোনো গ্রাহক চাইলে বিনা মূল্যে তাঁর বর্তমান নম্বর পরিবর্তন করে দেওয়া হচ্ছে। তবে বেশির ভাগ গ্রাহকই এতে রাজি হচ্ছেন না।

স¤প্রতি টেলিফোন বিকল থাকার ব্যাপারে অভিযোগ জানাতে বিটিসিএলের মুরাদপুর কার্যালয়ে যান পূর্ব নাসিরাবাদের বাসিন্দা সরফরাজ উদ্দিন। সেখানকার কর্মকর্তারা তাঁকে নম্বর পরিবর্তনের প্রস্তাব দেন। কিন্তু তিনি এতে রাজি হননি।

দৌলত আহমেদ বলেন, এর আগেও একবার ল্যান্ডফোনের নম্বর পরিবর্তন করে দেওয়া হয়েছিল। এখন বলছে আগের নম্বরে ফিরে যেতে। আমি কেন এতবার নম্বর পরিবর্তন করব?

কবে নাগাদ বিকল নম্বরগুলো সচল করা সম্ভব হবে, তা নিশ্চিতভাবে জানাতে পারেননি বিটিসিএলের চট্টগ্রাম অঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক তমাল নন্দী।

তিনি বলেন, কোরিয়ার প্রকৌশলীরা আসার পর বলা যাবে। যদি কারিগরি ত্রুটি সারানো না যায়, সে ক্ষেত্রে আমরা বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ক্রমান্বয়ে সব গ্রাহকের নম্বর পরিবর্তন করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেব। এছাড়া বিকল্প কোন পথ নেই বলে জানান তমাল নন্দী।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত