টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

শেষ হাসিটা তামিমের চিটাগং ভাইকিংসের

চট্টগ্রাম, ০৮ নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস): দুই দলেরই ইচ্ছে ছিল জয় দিয়ে বিপিএলের যাত্রা শুরু করা। কিন্তু শেষ হাসিটা হাসল তামিমের চিটাগং ভাইকিংস। আজ প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ২৯ রানে হারিয়ে বিপিএলের যাত্রা শুরু করেছে বন্দরনগরীর দলটি।

কাগজে-কলমে বিপিএলের যাত্রা শুরু হয়েছিল ৪ নভেম্বর। কিন্তু বেরসিক বৃষ্টির বাঁধায় প্রথম তিনের খেলা ভেস্তে যায়। মাঠের উত্তাপ না পাওয়ায় তিনের খেলা স্থগিত করে নতুন করে সূচী ঘোষণা করে আয়োজকরা। নতুন সূচী অনুযায়ী আজই আলোর মুখ দেখল বিপিএল। শুরু হল চার-ছক্কার ধুন্ধুমার লড়াই।

প্রথম ম্যাচে উত্তেজনার বারুদ ছড়াতে পারেনি চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা। তবে চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে উৎসব করেছে চিটাগং ভাইকিংস। গত আসরে ভালো দল নিয়েও আলো ছড়াতে ব্যর্থ হয়েছিল চিটাগং। এবারের যাত্রা ‘শুভ’ করল তামিম, ভাইকিংস।

টসে হেরে ব্যাটিং করতে নেমে তামিম শুরুতেই দূর্দান্ত। প্রথম চার, প্রথম ছক্কা সবই আসে তামিমের ব্যাট থেকে।

দারুণ ব্যাট চালাতে চালাতে কখন যে হাফসেঞ্চুরি পেয়ে যান তা নিজেও বুঝেননি। ৩২ বলে হাফসেঞ্চুরি পাওয়ার পর ইনিংসটি বড় করার পথেই হাঁটছিলেন তামিম। কিন্তু এনামুল হক বিজয়ের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝিতে রান আউট হন ৫৪ রান করা তামিম। মোহাম্মদ শরীফের বলে লং অনে ঠেলে দিয়ে ১ রানের জন্য দৌড় দিয়েছিলেন বিজয়। কিন্তু ২ রান নেওয়ার ইচ্ছে ছিল তামিমের। সেই লক্ষ্যে বিজয়ের ‘কলে’ সাড়া না দিয়েই ফিল্ডারের দিকে তাকিয়ে প্রান্ত বদল করেন তামিম। সেখানেই শেষ তামিমের অসারধারণ ইনিংসের। ৬ চার ও ২ ছক্কায় দলের মত বিপিএলের শুরুটাও দারুণ করেন তামিম। দেশসেরা ওপেনার সাজঘরে ফেরার পর বিজয়ও ২২ রানের ইনিংস রান আউটে কাটা পড়ে।

এরপর শোয়েব মালিকের ২৮ বলে ৪২ ও জহুরুল ইসলাম অমির ২১ বলে ২৯ রানের ইনিংসে ৩ উইকেটে ১৬১ রানের পুঁজি পায় চিটাগং।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে কুমিল্লা। কোনো ব্যাটসম্যানই উইকেটে টিকে থাকার চেষ্টা করেননি। ইমরুল কায়েস (৬), লিটন কুমার দাস (১৩) নিজেদের উইকেট বিলিয়ে আসেন। ১৮ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের মারলন স্যামুয়েলস ২৩ রান করে প্রতিরোধের ইঙ্গিত দেন। কিন্তু তাকে ফিরিয়ে দেন অভিজ্ঞ স্পিনার রাজ্জাক। এরপর মিডল অর্ডার গুড়িয়ে দেন আফগানিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক মোহাম্মদ নবী।

আসহার জাইদি, আল-আমিনকে আউট করার পর ফিরিয়ে দেন সোহল তানভীরকে। এছাড়া তাইমাল মিলস মাশরাফিকে এবং তাসকিন আহমেদ ইমাদ ওয়াসিমকে আউট করলে জয়ের স্বপ্ন অনেক আগেই ভেঙে যায় কুমিল্লার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত লড়ে পরাজয়ের ব্যবধান কমান প্রথমবারের মত টি-টোয়েন্টি খেলতে নামা নাজমুল হোসেন শান্ত। ৪৪ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ৫৪ রান করেন বাঁহাতি প্রতিভাবান এ ব্যাটসম্যান। শেষ ওভারে তাসকিনের প্রথম চার বলের চারটিতেই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে হাফসেঞ্চুরির স্বাদ নেন শান্ত। তার বীরত্বে স্কোরবোর্ডে ৮ উইকেটে ১৩২ রান সংগ্রহ করে কুমিল্লা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
চিটাগং ভাইকিংস ১৬১/৩ (২০ ওভার)
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ১৩২/৮ (২০ ওভার)

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত