টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

দেশ এখন অর্থনৈতিক মুক্তির পথে: চট্টগ্রামে বাণিজ্যমন্ত্রী

dscচট্টগ্রাম,  ০৫  নভেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, এই সরকারের আমলে বাংলাদেশ ডিজিটাল মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। দেশ এখন অর্থনৈতিক মুক্তির পথে। আর এই অর্থনৈতিক মুক্তির পথকে আরও দ্রুত এগিয়ে নিতে হলে নারীদের পুরুষের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।

আজ শনিবার চট্টগ্রামে ১০ম বারের মতো আয়োজিত মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক উইমেন্স এসএমই এক্সপো-২০১৬ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমান বাংলাদেশ নারীদের সহযোগিতায় সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে আমাদের দেশে ৩৪ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি বাণিজ্য, ৩১ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ এবং ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিটেন্স আছে। এই সরকার হল ব্যবসাবান্ধব সরকার। চট্টগ্রামে আরও উন্নয়ন করা হবে। এজন্য আরও প্রকল্প হাতে নেওয়া হচ্ছে। এটা আমাদের বাণিজ্যিক রাজধানী। ইতোমধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম ৪ লেন রাস্তা হয়েছে। এখানে আরো অনেক উন্নয়ন হবে।

চট্টগ্রাম উইমেন্স চেম্বার সম্পর্কে তিনি বলেন, এই চেম্বার খুবই শক্তিশালী। দেশের অর্থনীতির বিকাশে এই চেম্বার অনেক গুরুত্বপূর্ণ অগ্রণী ভুমিকা পালন করছে। তবে এই নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে মেলা আয়োজন ঠিক হয়নি বলে মন্তব্য করেন তিনি। পরবর্তী সময়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে পরামর্শ দেবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম উইমেন্স চেম্বারের প্রেসিডেন্ট কামরুন মালেক বলেন, পুরুষদের অনুকরণ করে নারী উন্নয়ন সম্ভব নয়। নারীদের হতে হবে পুরুষের প্রতিপক্ষ। আজ থেকে ১৪ বছর আগে এই চট্টগ্রাম উইমেন্স চেম্বারের যাত্রা শুরু হয়। তারপর থেকে দেশের অর্থনীতিতে এই চেম্বার অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম উইমেন্স চেম্বারের পক্ষ থেকে বিসিকের কাছে ১০০ টি প্রকল্পে ৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগের জন্য আবেদন করা হয়েছে। যেখানে ১৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে বলে আমরা মনে করছি। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কাছে শুধু নারী উদ্যোক্তাদের দ্বারা চালিত একটি ব্যাংক চাই। যে ব্যাংকের মাধ্যমে নারীদের অর্থনৈতিক নানা সমস্যা সমাধান সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, নারী ও পুরুষের মধ্যে ভেদাভেদ কমেছে। সবাই এখন সমানতালে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সহ সকল কার্যক্রমে সমানভাবে অবদান রাখতে পারে। নারীরা তাদের দায়িত্ব পালনে যথেষ্ট দায়িত্বশীল। কিছু ক্ষেত্রে সেই দায়িত্বপালন পুরুষদের থেকে বেশী করে থাকেন নারীরা।

চসিক মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দিন বলেন, বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে নারীদের এগিয়ে যাওয়ার কোনো বিকল্প নেই। নারীরা যাতে দেশে বাবসা বান্ধব পরিবেশ তৈরি করতে পারে সেজন্য আমাদের সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। এজন্য প্রধানমন্ত্রীর আরও নতুন পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য আবেদন জানান তিনি।

এফবিসিসিআই এর প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, দেশের শত প্রতিকূলতার মাঝেও বাংলাদেশ ৭ শতাংশ গ্রোথে নিয়ে গেছে। যেটার অবদান শুধু পুরুষের নয়। নারী ও পুরুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব হয়েছে। দেশে নারী ও পুরুষের মধ্যে বৈষম্য কমে গেছে। সবাই এখন সমানতালে ভুমিকা রেখে বাংলাদেশকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আমার বিশ্বাস করি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মহিলা সংসদ সদস্য মাহজাবিন মোর্শেদ এমপি, সাদিয়া নাহার এমপি, বাংলাদেশ পাট মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সম্পাদক নাসিমা বেগম, চট্টগ্রাম চেম্বার প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম, সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ সালাম, উইম্যান চেম্বারের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট মনোয়ারা হাকিম আলী সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট গুলশান আলী, ভাইস প্রেসিডেন্ট আইভি হাসান, মেলা আয়োজক কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী তুহিনা নুর আক্তার জাহান, নিশাত ইমরা, চট্টগ্রাম জুনিয়র চেম্বারের সভাপতি জসিমউদ্দিনসহ চেম্বারের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, এবারের মেলায় ৩০০টি স্টল, ১৫টি প্যাভিলিয়ন, নারী উদ্যোক্তাদের জন্য স্বল্প মূল্যে স্টল বরাদ্দ রাখা হয়েছে। মেলার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ ক্যাম্প, সিসিটিভি ক্যামেরা, বেসরকারি নিরাপত্তা রক্ষী, ফায়ার সার্ভিসসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে সাব-স্টেশন স্থাপন ও উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে।

এছাড়া মেলায় বিদেশ থেকে ইরান, ভারত, চীন, থাইল্যান্ড উদ্যোক্তারা মেলায় অংশ নিয়েছে। মাসব্যাপী এ মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে। টিকেটের দাম রাখা হয়েছে মাত্র ১৫ টাকা।

মাসব্যাপী এই মেলায় সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আছে ইপিবি, এফবিসিসিআই, এসএমই ফাউন্ডেশন, জেডিপিসি ও বাংলাদেশ ব্যাংক।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত