টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

১২ জন মিলে কোপালো চবি ছাত্রলীগের সহ-সভাপতিকে

চট্টগ্রাম, ৩০  অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: শনিবার রাত ৯টা। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আব্দুল রব হল মাঠ সংলগ্ন রাস্তা। প্রতিদিনের মতো বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি তায়েফুল হক তপু আড্ডা দিচ্ছিলেন। হঠাৎ কিছু বুঝে ওঠার আগেই চারদিক দিয়ে ঘিরে ফেললো তাকে। মুখে কাল কাপড়ে বাঁধা, হাতে তাদের চাইনিজ চাপাতি আবার কারও হাতে ছুড়ি। তারা ১২ জন কিন্তু অপু তখন একজন। এই একজনকে কেউ কোপালো মাথায় আর কেউ পায়ে, এ যেন কোনো জঙ্গি হামলার ভয়াবহতা।

এ সময় তপুর পাশে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান। তিনি বাধা দিলে তাকেও মেরে আহত করেন তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কিছু বুঝে ওঠার অাগেই তপুকে ঘিরে ফেলে। তারপর ১২ জন উপুর্যপুরি মাথায় ও পায়ে কোপাতে থাকে।

কোপানোর পর ঘটনা যা হবার তাই। তপুকে গুরুতর আহত অবস্থায় নিয়ে আসল চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। প্রায় দেড় ঘণ্টা অস্ত্রপাচার করার পর ডাক্তাররা জানান, তার মাথায় তিনটি চাপাতির কোপ, পায়ে এক ইঞ্চি পর পর কোপের চিহ্ন। পেটেও ছুরির আঘাত।

অস্ত্রপাচার সফল হলেও ২৪ ঘণ্টা পর তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানান ডাক্তাররা।

এর আগে শনিবার রাত ১০টায় মেডিকেলের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে অপারেশন থিয়েটারে সামনে তপুর সহপাঠীদের ভীড়। ধোঁক চেপে চেপে কাঁদছেন তারা। অপারেশনের রুম থেকে ভেসে আসছে ‘ও অাল্লাহ রে, ও মা রে ও বাপরে’ আহত তপুর এরকম চিৎকার। এ চিৎকার শুনে তার ভাই অপু বেহুশ হবার মতো অবস্থা। তিনিও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য।

তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো গ্রুপিং নেই আমার ভাইয়ের। কাউকে কোনোদিন মনে কষ্ট দেয়ার মতো কথাও বলেনি। সবার সঙ্গে সু-সম্পর্ক রাখার চেষ্টা করতেন। এ জন্যই আমার ভাইকে তারা মেরে ফেলতে চেয়েছিল।’

বিশ্ববিদ্যালয় সহকারী প্রক্টর অনোয়ার চৌধুরী বলেন, ‘আমরা জড়িতদের বের করার চেষ্টা করছি। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নিবে।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত