টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

‘বিশ্ব দৃষ্টি দিবস ২০১৬’ উদযাপনে ব্রিটিশ কাউন্সিল

bc_world-sightচট্টগ্রাম, ২৪ অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):   রাজধানীর ফুলার রোডে ব্রিটিশ কাউন্সিল কার্যালয়ে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের যৌথ সহযোগিতায় ‘বিশ্ব দৃষ্টি দিবস ২০১৬’ উদযাপন করলো ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশ।

অন্ধত্ব ও দৃষ্টি বৈকল্য দূরীকরণে সচেতনতা সৃষ্টিতে বিশ্বজুড়েই প্রতিবছর বিশেষ দিন হিসেবে বিশ্ব দৃষ্টি দিবস উদযাপন করা হয়। এ দিবস উদযাপনে ব্রিটিশ কাউন্সিল এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘স্ট্রঙ্গার টুগেদার’ নিয়ে ‘ইয়াং লার্নার’স আর্ট কম্পিটিশন’ শীর্ষক চিন্ত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সারাদেশে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী প্রায় ২৫শ’ শিশু-কিশোর প্রতিযোগিতাটিতে অংশগ্রহণ করে। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে থেকে ৩০ জনকে বিজয়ী নির্বাচিত করে তাদের সনদ দেয়া হয় এবং পুরস্কৃত করা হয়।

শিশুদের জন্য কর্মশালা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপিত হয়। বাংলাদেশ লায়ন্স ক্লাবের সহায়তায় ওইদিন আগত অতিথিদের জন্য একটি স্বেচ্ছাসেবী চক্ষু শিবিরেরও আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের ডেপুটি ডিরেক্টর জিম স্কারথ, প্রতিষ্ঠানটির লাইব্রেরি ম্যানেজার সারওয়াত রেজা, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের হেড অব করপোরেট অ্যাফেয়ার্স বিটপি দাশ চৌধুরী এবং লায়ন্স ক্লাব মতিঝিল রয়্যালের চিফ অ্যাডভাইজার লায়ন শাখাওয়াত হোসাইন।

অনুষ্ঠানে জিম স্কারথ বলেন, ‘বাংলাদেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশে নানা ধরনের সামাজিক সমস্যা চিহ্নিতকরণ ও সমাধানে গত কয়েক দশক ধরে কাজ করছে ব্রিটিশ কাউন্সিল। এ বছর আমরা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের যৌথ সহযোগিতায় বিশ্বব্যাপী এবং একইসাথে বাংলাদেশের জন্যও প্রাসঙ্গিক সব সমস্যার প্রায়োগিক সমাধান নিয়ে কাজ করছি।’

বক্তব্যে বিটপি দাশ চৌধুরী বলেন, ‘বেশ কিছু বছর ধরেই স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক চোখের সুস্থতা নিয়ে কাজ করছে। প্রতিরোধ ও নিরাময়যোগ্য অন্ধত্ব দূরীকরণে ‘সিইং ইজ বিলিভিং’ (এসআইবি) ব্যাংকটির বৈশ্বিক উদ্যোগ। এ ধরনের অন্ধত্ব দূরীকরণে এবং সুবিধাবঞ্চিতদের দৃষ্টি ফিরিয়ে দিতে ২০০৩ সালে বাংলাদেশে প্রকল্পটি যাত্রা শুরু করে। তখন থেকেই চক্ষুপরীক্ষা, স্বাস্থ্য বিষয়ক শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের কর্মশালা নিয়ে আমরা ১২৩ মিলিয়ন মানুষের কাছে পৌঁছেছি। শতকরা ৮০ ভাগ অন্ধত্বই নিরাময়যোগ্য এবং আমাদের বিশ্বাস, শুধুমাত্র সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে আমরা বিশ্বের ২৮৫ মিলিয়ন অন্ধ বা দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের দৃষ্টি ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করতে পারি।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত