টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ব্রিকস সম্মেলন: গোয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রাম, ১৬ অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আমন্ত্রণে রবিবার সকালে ব্রিকস-বিমসটেক নেতৃত্বের আউটরিচ সামিটে যোগ দেওয়ার লক্ষ্যে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভিভিআইপি ফ্লাইট বিজি-১০৯১ সকাল ৮টা ৫মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ভারতের দক্ষিণ-পঞ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য গোয়ার উদ্দেশে ঢাকা ছেড়ে যায়।

প্রায় ২০ ঘণ্টার এই ঝটিকা সফরে প্রধানত বিমসটেক-ব্রিকস শীর্ষনেতাদের আউটরিচ সামিটে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়াও অংশ নেবেন বিমসটেক লিডারস রিট্রিট কর্মসূচিতে।

সম্মেলনের সাইডলাইনে একাধিক দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক চূড়ান্ত করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এছাড়া আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্নভোজ ও আনুষ্ঠানিক নৈশভোজ ও ফটোসেশন কর্মসূচিতে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মন্ত্রিসভার কয়েকজন সদস্য, উর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তা ও একটি মিডিয়া টিমের সদস্যরা এই কর্মসূচিতে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয়েছেন।

প্রতিবেশী রাষ্ট্র পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের টানাপোড়নের মধ্যে গোয়ায় শনিবার শুরু হয়েছে অষ্টম ব্রিকস সম্মেলন। ব্রাজিল, চীন, রাশিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের বাণিজ্যিক জোটের এ সম্মেলন চলবে আজ রবিবার পর্যন্ত।

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক কূটনৈতিক তৎপরতা বৃদ্ধি করেছে ভারত। পাঁচ জাতির ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনে পারস্পরিক সহযোগিতা বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে পাকিস্তানকে আরো কোণঠাসা করতে চাইছে ভারত।

ভারতীয় সংবাদসংস্থা পিটিআই-এর এক প্রতিবেদনে এসব কথা উঠে আসে।

এবারের ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভারতের উপকূলীয় শহর গোয়ায়। এই অর্থনৈতিক জোটের এটি ৮ম সম্মেলন।

এতে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিশেল তেমের এবং দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা অংশগ্রহণ করছেন বলে নিশ্চিত করা হয়েছে।

ব্রিকস জোটভুক্ত পাঁচ দেশে বাস করেন ৩৬০ কোটি মানুষ, যা পুরো বিশ্বের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যার সমান। আর এই দেশগুলোর মোট জিডিপি প্রায় ১৬ লাখ ৬০ হাজার কোটি ডলার।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়েছেন, লক্ষ্য পূরণে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহযোগিতা চাইবে ভারত।

এক ফেসবুক পোস্টে তিনি আরো বলেন, ‘আমি আশাবাদী যে, এবারের ব্রিকস সম্মেলনে সদস্য দেশগুলোর মধ্যকার সহযোগিতা বাড়বে। সেই সঙ্গে উন্নয়ন, শান্তি, স্থিতিশীলতা এবং সংস্কারের পারস্পরিক সাধারণ বিষয়গুলোর ক্ষেত্রেও অগ্রসর হওয়া যাবে।’

সম্মেলন চলাকালে মোদি রুশ ও চীনা প্রেসিডেন্টসহ অন্যান্য নেতাদের সঙ্গে একাধিক দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসবেন বলে জানা গেছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে রাশিয়ায় ভারতের রাষ্ট্রদূত পঙ্কজ শরণ জানিয়েছেন, সম্প্রতি পাকিস্তানের সঙ্গে রুশ সামরিক বাহিনীর যৌথ মহড়ার বিষয়টি আলোচনা উত্থাপন করা হবে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আফগানিস্তানের আশরাফ গণি, ভুটানের শেরিং তবগে, মালদ্বীপের আবদুল্লা ইয়ামিন, মিয়ানমারের অং সান সু চি, নেপালের পুষ্প কমল দাহাল, শ্রীলঙ্কার মাইথ্রিপালা সিরিসেনা এবং থাইল্যান্ডের ক্ষমতাসীন নেতা প্রায়ুথ চান-ওচা এবারের ব্রিকস-বিমসটেক শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন বলে জানা গেছে।

১৯৯৭ সালে গঠিত সাত জাতি বিমসটেক নিয়ে ভারতের বেশ উচ্চাশা ছিল। কেননা এই জোটে তার চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান নেই। কিন্তু মিয়ানমারের জান্তা সরকার ও পরবর্তী সময়ে থাইল্যান্ডের রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে জোটটি প্রত্যাশা অনুযায়ী অগ্রসর হতে পারেনি।

২০০৪ সালের জুনে বিমসটেক মুক্ত বাণিজ্য অঞ্চল (এফটিএ) রূপরেখা চুক্তিতে যোগ দেয় বাংলাদেশ। একই বছর সেপ্টেম্বরে ব্যাংককে এর আওতায় ট্রেড নেগোসিয়েশন কমিটির (টিএনসি) প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এখন পর্যন্ত কমিটি পণ্য বাণিজ্য নিয়ে সমঝোতা শেষ করতে পারেনি। পণ্যের পর টিএনসির সেবা ও বিনিয়োগ খাতে সমঝোতা শুরু করার কথা। গোয়ায় অনুষ্ঠেয় আউটরিচ সম্মেলনে এফটিএ নিয়ে বিমসটেক নেতাদের কাছ থেকে একটি নির্দেশনা আদায়ের চেষ্টা করবে ভারত।

বিসমটেক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, পরিবহন ও যোগাযোগ, জ্বালানি, পর্যটন, প্রযুক্তি, মৎস্যসম্পদ এবং কৃষি খাতে সহযোগিতা নিয়ে কাজ করে। ঢাকায় এর সদর দপ্তর স্থাপন করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে (ভারতীয় সময়) গোয়া পৌঁছাবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।

তিনি সোমবার সকালেই ঢাকায় ফিরবেন। এ সময়ের মধ্যে বহুপক্ষীয় এই সম্মেলনের পাশাপাশি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে তার বৈঠকে অংশ নেওয়ার কথা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত