টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মাশরাফি-সাব্বিরকে জরিমানা, বাটলারকে সতর্কবার্তা

spচট্টগ্রাম, ১০ অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস): দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জস বাটলার আউট হওয়ার পর বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা বুনো উল্লাসে মেতে ওঠেন।

বিষয়টি ভালো লাগেনি বাটলারের। তাই তিনি তেড়ে যান বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের দিকে। তার তেড়ে যাওয়ার জবাব বাংলাদেশের খেলোয়াড়রাও দেন। শেষ পর্যন্ত আম্পায়ারদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

দ্বিতীয় ওয়ানডের ওই ঘটনার জন্য বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ও ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমানকে জরিমানা করেছে আইসিসি।

মাশরাফি ও সাব্বিরের ম্যাচ ফির ২০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে। আর ইংল্যান্ডের অধিনায়ক বাটলারকে ভৎসনা করার মাধ্যমে সতর্ক করা হয়েছে। সোমবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই সিদ্ধান্ত জানায় বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি।

সাব্বির ও মাশরাফি আইসিসির আচরণবিধির লেভেল-১ লঙ্ঘন করেছেন। যেখানে বলা আছে, কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোনো ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর তাকে উদ্দেশ্য করে এমন ভাষা, অঙ্গভঙ্গি কিংবা কোনো কাজ করা যেটা আক্রমণাত্মক। বিষয়টি আইসিসির আচরণবিধির ২.১.৭ অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে। এই ধরণের ঘটনার জন্য খেলোয়াড়দের তিরস্কার করার পাশাপাশি সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ম্যাচ ফি জরিমানা করা হয়।

এদিকে বাটলারকে আইসিসির আচরণবিধির ২.১.৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তিরস্কার করা হয়েছে। এই অনুচ্ছেদে বলা আছে, ম্যাচ চলাকালীন প্রতিক্রিয়ায় এমন ভাষা অথবা অঙ্গভঙ্গি করা যেটা দৃষ্টিকটু, অশ্রাব্য, আক্রমণাত্মক অথবা অপমানজনক।

ওই ঘটনার প্রতিবেদনে দ্বিতীয় ওয়ানডের ম্যাচ রেফারি জাভাগল শ্রীনাথ উল্লেখ করেন, ‘জস বাটলার আউট হওয়ার পর বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা অতিরিক্ত উদযাপন করে। তারা সামনের দিকে এগিয়ে যায়। একজন ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর এমন উল্লাস অযথাযথ এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আম্পায়ারদের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন হয়। আমরা খেলার মাঠে উত্তেজনা দেখতে চাই। তবে সেটা কখনোই যেন কাউকে খেপিয়ে তোলার উপলক্ষ্য না হয়। সেটা যেন প্রতিপক্ষের জন্য অপমানজনক না হয়।’

মতামত