টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাঙ্গুনিয়ায় অপহৃত স্কুলছাত্রী উদ্ধার

আব্বাস হোসাইন আফতাব
রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ০২ অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):  রাঙ্গুনিয়া উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে অপহরণের ১৮ দিন পর উদ্ধার করা হয়েছে। তবে অপহরণের সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। অপহৃত ছাত্রী হাটহাজারী ফরহাদাবাদ ভিকটিম সার্পোট সেন্টারে রয়েছে। অপহরণকারী ও সহযোগীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশ।

থানায় দায়ের করা মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়নের ভূমিরখীল এলাকার প্রবাসী মৌলভী মো. ওবায়দুল­াহর মেয়ে সরফভাটা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী আনিকা(১৪) ১০ সেপ্টেম্বর বিকেলে স্কুল থেকে ফেরার পথে একই এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের পুত্র শাহাদাত হোসেন(২২) কৌশলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। ঐদিন মেয়েটি বাড়িতে ফিরে না আসায় তার পরিবার আত্মীয়-স্বজন বিভিন্ন সম্ভাব্য স্থানে খোঁজ করে। খুঁজে না পাওয়ায় ১২ সেপ্টেম্বর থানায় নিখোঁজ ডায়রী করে মেয়েটির পরিবার। এর মধ্যে খবর আসে মেয়েটিকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ফুঁসলিয়ে একই এলাকার শাহাদাত অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার সাথে জড়িত কয়েকজন যুবক ও মূল হোতা শাহাদাত হোসেনকে প্রধান আসামী করে মেয়েটির চাচা বাদী হয়ে রাঙ্গুনিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, অপহরণের পর থেকে কথিত প্রেমিক শাহাদাত মেয়েটিকে হাটাহাজারী, আনোয়ারা, ফটিকছড়িসহ বিভিন্ন স্থানে নিয়ে রাখে। সরফভাটা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রত্যয়নপত্র, মেয়েটির পিএসসি পরীক্ষার সনদ ও মেয়েটির মূল জন্মসনদ অনুযায়ী দেখা যায় মেয়েটির সঠিক জন্মসাল ২ মে ২০০২। মেয়েটির বাবা-মায়ের বিয়ের রেজিষ্ট্রি অনুসন্ধান করে দেখা যায় তাদের বিয়ে হয়েছিল ২৭ জুন ২০০১ সালে। এ হিসেবে মেয়েটির আসল বয়স ১৪ বছর ৫ মাস। যা বাংলাদেশের নিকাহ রেজিষ্ট্রার আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের কম।

অপহৃত স্কুল ছাত্রীর চাচা ও মামলার বাদী মো. হাবীব উল­াহ জানায়, ‘আমার ভাতিজি সরফভাটা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনির ছাত্রী। সে এখনো অবুঝ। আমি আমার ভাতিজির বয়স প্রমাণের জন্য থানায় তার পিএসসি সনদ, বিদ্যালয়ের প্রত্যয়নপত্র ও মূল জন্মসনদ জমা দিয়েছি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও রাঙ্গুনিয়া থানার এসআই মোহাম্মদ ইসমাইল জানায়, অপহরণের পর থেকে তারা স্থান পরিবর্তন করে আসছিল। সর্বশেষ যেখান থেকে মেয়েটি অপহরণ করা হয়েছে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। তবে কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। অপহরণকারীর মোবাইল ট্র্যাকিং করে মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়েছে। অপহরণকারীকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

রাঙ্গুনিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হুমায়ুন কবির জানান, অপহৃতকে প্রযুক্তি ব্যবহার করে উদ্ধার করা হয়েছে। অপহরণকারী ও অপহরণের সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে ষ্পেশাল অভিযান চালানো হচ্ছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত