টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মনজুরের আ’লীগে ফেরার আভাস দিল মহিউদ্দিন

aচট্টগ্রাম, ০১ অক্টোবর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):  বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের এক অনুষ্ঠানে এক মঞ্চে পাশাপাশি বসেছেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সাবেক মেয়র মনজুর আলম; মিলেছে মনজুরের আওয়ামী লীগে ফেরার আভাসও।

এদিকে,  বিগত সিটি করপোরেশন নির্বাচন চলাকালে কেন্দ্র দখল ও ভোটদানে বাধার দেওয়ার অভিযোগে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন মনজুর আলম। একই সঙ্গে রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেও  নির্বাচনের পর প্রায় এক বছর পারিবারিক ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও গত ১৫ আগস্ট ম মনজুর আলম বঙ্গবন্ধুর শোক দিবস পালন করেন।

ওইদিন সাবেক এই মেয়রের এক নাতিকে আহ্বায়ক করে বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শেখ রাসেলের নামে একটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে।

মনোনয়ন নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হওয়া মনজুর আলমকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা করা হলেও সর্বশেষ নতুন কমিটিতে তাঁর স্থান হয়নি দলে।

বঙ্গবন্ধুর শোক দিবস পালনের বিষয়ে জানতে চাইলে তখন মনজুর আলম বলেছিলেন, ফোর্থ জেনারেশন পর্যন্ত সবাই বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী।

অপরদিকে, আজ শনিবার দুপুরে নগরীর উত্তর কাট্টলী মোস্তফা-হাকিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ মাঠে ‘প্রবীণ সমাজসেবক ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে সমাজসেবায় অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ- গণসংবর্ধনা’র আয়োজন করা হয়।

আয়োজক বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের সভাপতি হলেন নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। ফাউন্ডেশনের সদস্য সচিব মহিউদ্দিনের রাজনৈতিক শিষ্য এবং সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম।

শনিবারের অনুষ্ঠানে দুজন মঞ্চে পাশাপাশি আসনে বসেছিলেন। অনুষ্ঠান চলাকালে দুজনকে অন্তরঙ্গ আলাপরত অবস্থায় দেখা গেছে।

অনুষ্ঠানে মূলত স্থানীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত ৪৪ জন প্রবীণকে সংবর্ধিত করা হয়। সংবর্ধিতদের হাতে দুই নেতা মিলে ক্রেস্ট তুলে দেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে মনজুরকে ইঙ্গিত করে মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, কেউ দলের পতাকাতলে আসতে চাইলে বাধা দেবেন না। যারা আওয়ামী লীগের পতাকাতলে আসতে চায় তাদেরকে উৎসাহিত করবেন।

“বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের পক্ষে মনজুর আলম আজ যেভাবে গুণীজনদের সংবর্ধিত করেছেন, তা আগামী প্রজন্মের জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে।”

সভাপতির বক্তব্যে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেন সাবেক মেয়র মনজুর আলম।

অনুষ্ঠানের পর মনজুর আলম উপস্থিত সংবাদকর্মীদের বলেন, “মহিউদ্দিন চৌধুরী আমার নেতা, চট্টগ্রামের নেতা। মহিউদ্দিন চৌধুরীর বিকল্প চট্টগ্রামে হবে না।

“উনি মেয়র থাকাকালে আমাকে বারবার ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব দিয়েছেন। কাজ শিখেছি। তার কারণেই আমি মেয়র হয়েছি।”

সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে মনজুর আলমের হাত ধরেই মঞ্চ থেকে নামেন মহিউদ্দিন। এরপর রাজনৈতিক শিষ্য মনজুরের হাত ধরে হেঁটে সভাস্থল ত্যাগ করেন তিনি।

তবে এ বিষয়ে জানতে সন্ধ্যায় মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এখনই কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অন্যদিকে মনজুর আলমের সাথে যোগাযোগ করতে একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ১৫ অগাস্ট ‘বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের’ উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান আয়োজনের পর থেকেই তার আওয়ামী লীগে ফেরা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়।

মতামত