টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ক্যান্সার জয় করতে ফটিকছড়ির হান্নান এখন ভারতে

‘মানুষের ভালোবাসায় বাঁচিয়ে তুলবে আমার ছেলেকে’

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

hannanচট্টগ্রাম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: যে ছেলেটির কলেজ ক্যাম্পাসজুড়ে দাঁপিয়ে বেড়ানো সময়; সেই সময়টাতে ছেলেটা বিছানায় রোগে কাতরাচ্ছে। চিকিৎসালয়ে যাওয়ার পথে কলেজের দিকে ভীষন্ন মনে তাকিয়ে নিরবে ভাবে সে, কবে ফিরবে এ ক্যাম্পাসে ? কিন্তু কি করে ফিরবে, তাকে যে মরণব্যাধী ক্যান্সার গ্রাস করেছে। উন্নত চিকিৎসা করাবে এমন অর্থবিত্ত কৃষক বাবার নেই। তা যেনে নিরবে বসে বসে শুধু কান্নায় তার সঙ্গী।

নাজিরহাট কলেজের মেধাবী ছাত্র মো.হান্নান (২০)। বাবা নাজিরহাট পৌরসভাধীন ভাঙ্গা দিঘীর পাড় এলাকার হত দরিদ্র কৃষক আশিকুর রহমান। কৃষক বাবার শেষ সম্ভলটুকু বিক্রি করে শেষ করেছে আদরের ছেলেটাকে বাঁচাতে। ছেলে কলেজে পড়ে তার আত্মসম্মান নষ্ট হবে, বন্ধুদের কাছে ছোট হয়ে যেতে পারে সেই ভয়ে কারো কাছে হাত পাতেননি তিনি।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ নানাভাবে ছড়িয়ে পড়ে হান্নানের এমন দুর্দশার কথা। তার ফেরার এমন ব্যাকলুতা সবার মনকে দুলা দিয়েছে। তাকে সুস্থ করে তুলতে হাত বাড়িয়েছে বন্ধু, সহপাঠি, প্রবাসীসহ সমাজের নানা স্তরের মানুষ। নাজিরহাট কলেজের রেজাউল করিম ইমন, জাহাঙ্গীর আলম, আলাউদ্দীন, নয়ন, এমদাদ, আফতাব, ফয়েজ, এহসান, রিমন, বাপ্পু, ইসতিয়াক, জেসমিন, রিয়াজ হাসান, ফরহাদসহ আরো কয়েকজন তার বন্ধু কিংবা কলেজের বড় ভাই-বোনরা স্কুল কলেজের ধারে ধারে গিয়ে চিকিৎসা তহবিলে অর্থ সংগ্রহ করতে লাগলো। তারা প্রায় ৭৫ হাজার টাকা সংগ্রহ করে হান্নানের বাবার হাতে তুলে দিলেন। সমাজকর্মী ও সাংবাদিক জাহাঙ্গীর উদ্দিন মাহমুদ স্ব উদ্যোগে তার চিকিৎসা তহবিল গঠনে বিরাট ভুমিকা রাখলেন। তিনি ফেইসবুকে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে একশো, দু‘শো, পাঁচশ কিংবা হাজার টাকা করে সংগ্রহ করলেন দু‘লক্ষ টাকার উপরে। যার বেশিরভাগ টাকা সংগ্রহ প্রবাসীদের কাছ থেকে।

নাজিরহাটের দু:খী ফারুকের ‘মানব কল্যাণে এসো কিছু করি’ সংঘটনটিও এগিয়ে আসলেন প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা অনুদান দিয়ে। অপরদিকে, বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের তৎপরতা দেখে উপজেলা প্রশাসনও এগিয়ে আসলেন। একইভাবে সহযোগিতার হাত বাড়ালেন সমাজকর্মী ও কলামিষ্ট এ কে. জাহেদ চৌধুরীও। এছাড়া বিভিন্নভাবে আরো অনেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন হান্নানের চিকিৎসার জন্যে। বুধবার বিকেলে হান্নানকে নিয়ে বাবা আশিকুর রহমান ভারতে সড়ক পথে রাওনা দিয়ে আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে কলকাতায় পৌঁছেন। সেখানে কলকাতা টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে হান্নানের চিকিৎসা করানো হবে।

হান্নানের বাবা আশিকুর রহমান বলেন, ‘প্রায় চার লক্ষ টাকার কাছাকাছি দিয়ে আমার ছেলের চিকিৎসার জন্য যারা এগিয়ে এসেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করার মতো ভাষা জানা নেই আমার। এ অর্থ সংগ্রহ করতে যারা রাত দিন পরিশ্রম করেছে, তাদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমার দৃঢ বিশ্বাস মানুষের ভালোবাসায় বাঁচিয়ে তুলবে আমার ছেলেকে।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত