টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হলোনা সুস্মিতের অকালেই ঝরে গেলো এক মেধাবী শিক্ষার্থী

এম মাঈন উদ্দিন
মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 

mirsarai-susmit-photo-2চট্টগ্রাম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  অসময়ে মৃত্যু হলো একটি স্বপ্নের। ঝরে গেলো একটি মেধাবী তাজা প্রাণ। যে মৃত্যু মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে বাবা-মা আত্মীয়-স্বজন ও সহপাঠিদের। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ( চুয়েট) মেকানিক্যাল বিভাগের ১ম বর্ষের ছাত্র তাওকির তাজামুল সুস্মিত (২০)। শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) ভোরে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে মিরসরাইয়ের বড়তাকিয়া এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় অকালে ঝরে যায় এই মেধাবী প্রাণ। এসময় আরো ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। সুস্মিতের মৃত্যুত এখানেই থেমে গেলো একটি স্বপ্নের। আজ রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) তার গনিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। মুলত পরীক্ষায় অংশ নিতে ঢাকা থেকে বিশ্বাবদ্যালয় যাচ্ছিলেন সুস্মিত। বাবা আবদুস সাত্তার পুলিশ একজন কর্মকর্তা। তিনি বাংলাদেশ পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিকেশন (পিবিআই) গাজিপুরে কর্মরত। মা তুহিন আক্তার গৃহিনী। দুই ভাইয়ের মধ্যে সুস্মিত বড়। তার ছোট ভাই তানভীর হোসেন ঢাকার মিরপুরে একটি কিন্ডার গার্টেন স্কুলে ৩য় শ্রেণীতে অধ্যায়নরত। তাদের গ্রামের বাড়ি দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার আহম্মদ নগরে।

সড়ক দুর্ঘটনায় সুস্মিতের নিহত হওয়ার খবর শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন প্রিয় পাঠশালার শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। তার সাথে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু হলের একই রুমে থাকা সহপাঠি ইমরুল, নাজিম আরাফাত ও রিপাতের সাথে কথা হয় জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ কার্যালয়ে। তারা বলেন, আমাদের কাছে খবর যায় সুস্মিত দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। এখানে আসার পর দেখলাম সে বেঁেচ নেই। ভাবতেই পারছিনা সুস্মিত আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন।

সুস্মিতের সহপাঠি আবুল কালাম শিপন বলেন, কাল রাত সাড়ে ১২টার দিকে সে শ্যামলী বাসে উঠার সময় আমাকে কল দিয়ে বলেছিলেন আমি বাসে উঠছি। কাল সকালে ক্যাম্পাসে দেখা হবে। কিন্তু বিধিবাম ক্যাম্পাসে তার যাওয়া হয়নি। আমার তার লাশ দেখতে ছুটে এলাম।

ছেলের মৃত্যুর খবর শুনে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টাযোগে ছুটে আসলেন পিতা আবদুস সাত্তার। এসেই ছেলের নিথর দেহ পড়ে আছে দেখে হাউমাউ করে কেঁদে উঠেন।

তিনি বলেন, অনেক আশা ছিলো ছেলেক ইঞ্জিনিয়ার হবে। কিন্তু আমার সেই আশা পুরন হলোনা।

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্বদ্যিালয়ের মেকানিক্যাল বিভাগের শিক্ষক, ড. সাদেক আহম্মদ বলেন, আজ রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) মেকানিক্যাল বিভাগের তার গনিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো। সে পরীক্ষায় অংশ নিতে ঢাকা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে যাচ্ছিলো। কিন্ত তার পরীক্ষা দেয়া হলোনা। তার মৃত্যুর কারণে আজকের গণিত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সুস্মিত খুবই ন¤্র ভদ্র স্বভাবের ছিলেন। সবসময় হাশিখুশি থাকতেন।

শনিবার দুপুরে চৌধুরীহাট জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে সুস্মিতের প্রথম জানাযা অুষ্ঠিত হয়। জানাযায় তার প্রিয় ক্যাম্পাসের শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। এরপর লাশবাহী এ্যম্বুল্যান্স তার গ্রামের বাড়ি দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার আহম্মদ নগরের উদ্দ্যেশ্যে রওয়ানা দেয়।

জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ ফরিদ উদ্দিন জানান, শনিবার দুপুরে চুয়েট শিক্ষার্থী সুস্মিতের লাশ তার পিতার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মতামত