টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফাঁকা হচ্ছে চট্টগ্রাম, জনস্রোত ঘরমুখো

ছবিঃ অনুপম বড়ুয়া

ছবিঃ অনুপম বড়ুয়া

চট্টগ্রাম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  প্রতিবারের মতো এবারও ঈদ উপলক্ষে চট্টগ্রামের নাগরিক ব্যস্ত জনজীবন পুরো পাল্টে যাচ্ছে। ফাঁকা হচ্ছে ঢাকা আর জনস্রোত ভীড় করছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাওয়ার টার্মিনালগুলোতে। যানজট, শিডিউল বিপর্যয়, অতিরিক্ত ভাড়া, যাত্রী চাপ- সব ভোগান্তি মেনে নিয়েই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে শেকড়ের টানে বাড়ি যাচ্ছে মানুষ। 

ঘরমুখো মানুষের চাপে চট্টগ্রামের বিভিন্ন টার্মিনাল ও চারপাশের জেলাগুলোতে ব্যাপক যানজট সৃষ্টি হলেও চট্টগ্রামের অভ্যন্তরীণ সড়কগুলো যানশূন্য হয়ে আসছে।

বৃহস্পতিবার সরকারি অফিসগুলো ছুটি হওয়ার বিকেল থেকেই চট্টগ্রামের সবকটি টার্মিনালেই উপচেপড়া ভীড় দেখা যায়। আর সরকারি ছুটির প্রথম দিন শুক্রবার সকাল থেকে সে ভীড় আরও বাড়তে থাকে। বিকেলে গার্মেন্টসসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ছুটি হওয়ায় এ চাপ আরও বাড়বে বলে জানিয়েছেন টার্মিনাল সংশ্লিষ্টরা।

শুক্রবার ছিল ট্রেনের অগ্রিম টিকিটের তৃতীয় দিন, এদিন সকাল থেকেই রেল স্টেশনে জনস্রোত নামে ঘরমুখো মানুষের। চট্টগ্রাম ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলোতেও যেন ছিল না তিল ধারনের ঠাঁই, বাধ্য হয়ে অনেকে আশ্রয় নিয়েছেন ট্রেনের ছাদে। অতিরিক্ত যাত্রী চাপের কারণে অনেকে নিজের সিটেও পৌঁছাতে পারেননি, রয়েছে শিডিউল বিপর্যয়ের ভোগান্তিও।

রেলের যাত্রী জসিম উদ্দিন বলেন, কষ্ট করে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কেটেও ভীড়ের কারণে সিটে বসতে পারিনি।

চট্টগ্রাম স্টেশনের ম্যানেজার বলেন, সরকারি ছুটির কারণে যাত্রী চাপ একটু বেশি। তবে শিডিউল অনুযায়ীই সকল ট্রেন ছেড়ে যাবে।

এদিকে সড়কপথে ভোগান্তির মাত্রা আরও বেশি। চট্টগ্রামের বাস টার্মিনালে ৩-৪ ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকেও বাসের দেখা পাচ্ছেন না অনেকে। আর যারা অগ্রিম টিকিট কাটতে পারেননি তাদের গুনতে হচ্ছে নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি দামে। আর অতিরিক্ত যাত্রী হওয়ায় বেশ কিছু বাসে ছাদে করেও যাত্রীদের ঢাকা ছাড়তে দেখা গেছে।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের কথা জানিয়ে ঝিনাইদহের যাত্রী কাজী আরিফ বলেন, রয়েল গাড়িতে আগে ভাড়া ছিল সাড়ে ৪০০ টাকা। এখন নিয়েছে সাড়ে ৫০০ টাকা।

শিডিউল বিপর্যয়ের কারণ জানতে চাইলে হানিফ পরিবহনের বুকিং মাস্টার রাজু আহমেদ বলেন, রাস্তায় প্রচুর জ্যাম থাকায় গাড়িগুলো ঠিক সময়ে ঢাকায় আসছে না। তাই ছাড়তেও হচ্ছে দেরিতে।

এদিকে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শূন্য হচ্ছে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা। শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, সরকারি-বেসরকারি অফিস, গার্মেন্টস, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ছুটি হয়ে যাওয়ায় ঢাকার নাগরিক ব্যস্ততা এখন কেবল ঈদ বাজার কেন্দ্রীক।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত