টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কর্ণফুলীর টানেল নির্মাণে পরামর্শক নিয়োগ প্রস্তাব অনুমোদন

চট্টগ্রাম, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::  কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে বহুলেন সড়ক টানেল নির্মাণ প্রকল্পের ডিজাইন রিভিউ ও নির্মাণ তদারকি কাজের পরামর্শ প্রতিষ্ঠান নিয়োগের ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

আজ বুধবার সচিবালয়ে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির চলতি বছরের ২৩তম সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সভাপতিত্বে এতে আরও উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইঞ্জি মোশাররফ হোসেন, পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক প্রমুখ।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান জানান, কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে বহুলেন সড়ক টানেল নির্মাণ প্রকল্পের ডিজাইন রিভিউ ও নির্মান তদারকি কাজের পরামর্শ প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রস্তাবের সুপারিশ করেছে কমিটি। ট্যাক্স ও ভ্যাটসহ এর চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে ২৯১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

দেশে প্রথমবারের মতো নদীর তলদেশ দিয়ে যানবাহন চলাচলের জন্য টানেল নির্মাণ করা হবে। চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে ৩ দশমিক ৪ কিলোমিটার লম্বা এ টানেল নির্মাণে প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। জি টু জি ভিত্তিতে চীন ও বাংলাদেশ সরকারের সেতু কর্তৃপক্ষ এটি বাস্তবায়ন করছে। টানেল নির্মাণ হলে বদলে যাবে চট্টগ্রামের চিত্র। আমূল পরিবর্তন আসবে অর্থনৈতিক আঙিনায়। বহুমুখী যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত হবে।

আগামী ১০ থেকে ১৩ অক্টোবর চীনের প্রেসিডেন্টের তিন দিনের সফরে বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যৌথভাবে কর্ণফুলী টানেলের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করার সম্ভাবনা রয়েছে।

দেশের প্রথম এই টানেলটি ‘ডুয়েল টু লেন’ টাইপের হবে। ‘শিল্ড ড্রাইভেন মেথড’ অনুযায়ী এ টানেল নির্মাণ করা হবে। চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর থেকে কর্ণফুলী নদীর ২ কিলোমিটার ভাটির দিকে এর অ্যালাইনমেন্ট হবে। টানেলের প্রবেশপথ হবে নেভি কলেজের কাছে। বহির্গমন পথ হবে কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পারের সিইউএফএল সার কারখানা সংলগ্ন ঘাট। মোট ৯ হাজার ২৬৫ দশমিক ৯৭১ মিটার দৈর্ঘ্যের প্রকল্পটির মধ্যে টানেলের দৈর্ঘ্য ৩ হাজার ৫ মিটার (উভয় পাশের ৪৭৭ মিটার ওপেন কাট ব্যতীত)। টানেলে ৯২০ মিটার দৈর্ঘ্যের দুটি ফ্লাইওভার থাকবে। এর মধ্যে শহর প্রান্তের ‘অ্যাট গ্রেড সেকশন’ হবে ৪৬০ মিটারের আর দক্ষিণ প্রান্তের ‘অ্যাট গ্রেড সেকশন’ হবে ৪ হাজার ৪০৩ দশমিক ৯৭১ মিটারের।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত