টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রামগড়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অজ্ঞাত রোগ; জেলা তদন্ত কমিটির পরিদর্শন

করিম শাহ
রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি

Ramgarh-News-picচট্টগ্রাম, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: খাগড়াছড়ির রামগড়ের গত ৩০ আগষ্ট থেকে সপ্তাহব্যাপি মাধ্যমিক ও প্রাইমারী বিদ্যালয়ে ছড়িয়ে পড়া অজ্ঞাত রোগটি সনাক্তে ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনার্থে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত দল আজ মঙ্গলবাল আক্রান্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। এর আগে এ ঘটনার প্রথম দিনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে স্থানিয়ভাবে গঠিত তদন্তু কমিটির প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে।

জেলা মা ও শিশু স্বাস্থ্য ইমোনেশন অফিসার ডাক্তার উতফল চাকমা কে প্রধান করে জেলা সিনিয়র মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট মো. আলমগীর হোসেন ও জেলা জুনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্মকর্তা ইন্দু বিকাশ চাকমা আক্রান্তু প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, আক্রান্ত ছাত্রী, অভিবাবাক ও সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন। পরে তদন্ত কমিটি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে সাক্ষাৎ শেষে রামগড় ত্যাগ করেন।

তদন্ত কমিটির প্রধান ডাক্তার উতফল চাকমা সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আলামত সংগ্রহ ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেছি এ বিষয়ে আগমী দুই একদিনের মধ্যে জেলা সিভিল সার্জন বরাবর প্রতিবেদনটি জমা দেয়া হবে।

ঘটনার শুরুর প্রথম দিনে রামগড় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার রতন খীসাকে প্রধান করে গঠিত ৩ সদস্যের তদন্ত প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন এর নিকট জমা দেয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে মাদ্রাসারা পরিবেশ ও গণ সোচাগারের উন্নতি, মাদ্রাসায় উন্নত ক্যান্টিন ব্যবস্থা, ছাত্রীদের উপভাস থাকায় দুর্ভলতা, শ্রেণী কক্ষে অতিরিক্ত ছাত্র ছাত্রীর পাঠদান, শিক্ষক ও অভিবাবক সমাবেশ ও অভিবাবকদের সচেতনতাসহ বেশ কিছু বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

প্রসজ্ঞত, রামগড় গণিয়াতুল উলুম আলিম মাদ্রাসার প্রায় ৪০ জন ছাত্রী গত ৩০ আগষ্ট মঙ্গলবার দুপুরে থেকে শনিবার পর্যন্ত দাফে দাফে আক্রান্ত হয় । গত রবিবার রামগড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ ছাত্রী একই রোগে আক্রান্ত হয়। সর্বশেষ গত সোমবার গর্জনতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৮ জন ও সোনাই আগা সরাকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩জন শিশু ছাত্রী নতুন ভাবে আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়।

 

মতামত