টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

দেশে প্রথম ট্রেকিং’র মাধ্যমে শিক্ষক মনিটরিং সেবা ফটিকছড়িতে

শিক্ষকেরা আর ক্লাস ফাঁকি দিতে পারবেন না: ডিসি মেজবাহ

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

Fatickchariচট্টগ্রাম, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):  বিদ্যালয়ে যথাসময়ে শিক্ষকদের উপস্থিতি মনিটরিং করতে বিশেষ মোবাইল ট্রেকিং সেবা চালু করা হয়েছে।

গ্রামীণ ফোনের সহয়তায় সারা দেশের মধ্যে সর্ব প্রথম ফটিকছড়িতে এই সেবা কার্যক্রম চালু করা হয়।

ইতোমধ্যে ফটিকছড়ির ২২১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ হাজার ১০০ শিক্ষকের হাতে সিমকার্ড পৌঁছে গেছে। এখন থেকে এ ট্রেকিং সেবা কার্যক্রম চালু থাকবে।

এই মর্মে, আজ রোববার সকালে ফটিকছড়ি উপজেলা পরিষদের জহুরুল হক মিলনায়তনে উপজেলা প্রশাসনের সাথে গ্রামীণফোনের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চুক্তিপত্রে সই করেন উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলাম ও গ্রামীণ ফোনের পক্ষে সার্কেল কর্মকর্তা মো. শাওন আজাদ।

চুক্তি স্বাক্ষরোত্তর অনুষ্টানে প্রধান অতিথি ছিলেন, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘গ্রামীণ ফোনের সহায়তায় এখন থেকে ট্রেকিং যন্ত্র দিয়ে শিক্ষকদের যথাসময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিতি নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ফলে শিক্ষকেরা আর ক্লাস ফাঁকি দিতে পারবেন না। উপজেলা শিক্ষা কার্যালয়ে বসে শিক্ষকদের উপস্থিতি নিশ্চিত করা যাবে। যারা বিদ্যালয়ে যথাসময়ে উপস্থিত থাকবে না তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এ সময় আধুনিক শিক্ষার পরিবেশ গড়ে তুলতে শিক্ষকদের এগিয়ে আসারও আহবান জানান তিনি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘যুগোপযোগী শিক্ষার পরিবেশ ও জবাবদিহীতা নিশ্চিত করতে সারা দেশে আমরা প্রথম এই উদ্যোগ নিয়েছি। গ্রামীণ ফোনের সহায়তায় ইতোমধ্যেই এ কার্যক্রম চালু হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, ফটিকছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম তৌহিদুল আলম বাবু, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন চৌধুরী, গ্রামীণ ফোনের মার্কেটিং কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান, চট্টগ্রাম সার্কেল কর্মকর্তা মো. শাওন আজাদ।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত