টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

তিন পার্বত্য জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে

চট্টগ্রাম, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):  পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের বৈঠকের প্রতিবাদে পাঁচটি বাঙালি সংগঠনের ডাকে তিন পার্বত্য জেলায় রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হচ্ছে।

তিন জেলায় শহরের রাস্তায় রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে পিকেটাররা বিক্ষোভ করছে। সকাল থেকে দূরপাল্লার ও অভ্যন্তরীণ রুটে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

রাঙ্গামাটি শহরের তবলছড়ি, রিজার্ভ বাজার, বনরূপা, কলেজ গেট এলাকায় সকল দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। বাঙালি সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে পিকেটিং করছে। তারা রাঙ্গামাটি প্রবেশ মুখ মানিকছড়ি ও কলেজ গেটে বেশ কয়েকটি গাড়ি আটকে দিয়েছে।

এদিকে শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বান্দরবান সদর থানার ওসি মো. রফিক উল্লাহ্ জানান, হরতালে যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে পুলিশ লক্ষ রাখছে।

এদিকে সকাল সাড়ে ১০টায় রাঙামাটিতে পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনের উদ্যোগে রাঙামাটি সার্কিট হাউসে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। বৈঠকে থাকবেন ভূমি কমিশনের চেয়ারম্যান ও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মোহাম্মদ আনোয়ার উল হক, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সভাপতি ও আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা)। এছাড়া তিন পার্বত্য জেলার সার্কেল চীপ, তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, তিন জেলা প্রশাসকসহ সরকারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।

উল্লেখ্য, ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর স্বাক্ষরিত পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির ‘ঘ’ খণ্ডের ৪নং ধারাবলে পার্বত্য চট্টগ্রাম ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন গঠন করা হয়। গত ১ আগস্ট পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন (সংশোধন) আইনের খসড়া নীতিগত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। ৮ আগস্ট রাষ্ট্রপতি এই আইনে স্বাক্ষর করেন এবং ৯ তারিখ গেজেট প্রকাশ করা হয়। পার্বত্য ভূমি কমিশন আইন বাতিলের দাবিতে তিন পার্বত্য জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয় পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলন, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ, পার্বত্য গণ পরিষদ, পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ ও পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র ঐক্য পরিষদ।

পার্বত্য নাগরিক পরিষদের সভাপতি আতিকুর রহমান জানান ভূমি কমিশন আইনটি কার্যকর হলে পার্বত্য এলাকার বাঙালিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কমিশনে বাঙালিদের কোনো প্রতিনিধি রাখা হয়নি। বাঙালিদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা না করেই একতরফাভাবে সভা আহ্বান করেছে কমিশন। এর প্রতিবাদে হরতাল আহ্বান করা হয়েছে। অবিলম্বে ভূমি কমিশনের কার্যক্রম বন্ধ করা না হলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত