টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ট্যাংক বিস্ফোরণ: দুইজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার সুপারিশ

চট্টগ্রাম, ৩১ আগস্ট ২০১৬ (সিটিজি টাইমস): চট্টগ্রামের ডিএপি সার কারখানায় ট্যাংক বিস্ফোরণে অ্যামোনিয়া ছড়িয়ে পড়ার ঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি। তদন্ত প্রতিবেদনে সার কারখানার মহাব্যবস্থাপক (কারিগরি ও রক্ষণা-বেক্ষণ) নকীবুল ইসলাম এবং উপ-প্রধান প্রকৌশলী দিলীপ বড়ুয়ার গাফিলতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তি ও ক্ষতিপূরণ নেয়ার সুপারিশ করা হয়েছে

বুধবার দুপুরে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন এই তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করেন। এ সময় তদন্ত কমিটির প্রধান মুমিনুর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।

তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, কারখানায় পাঁচ ধরনের সুরক্ষা যন্ত্রের মধ্যে সব যন্ত্র অকেজো ছিল বলে প্রমাণিত হয়েছে। ট্যাঙ্কের তাপমাত্রা কমানোর জন্য ট্যাঙ্কের কুলিং কম্প্রেসার সিস্টেম তিন বছর ধরে নষ্ট। ট্যাঙ্কে রক্ষিত গ্যাসের চাপ মাপার দুটি প্রেশার গজও অকেজো। দুটি প্রেশার ট্রান্সমিটারের একটি আগে থেকে ও আরেকটি ঘটনার একদিন আগে নষ্ট হয়ে যায়। ট্যাঙ্কের অতিরিক্ত গ্যাস চাপ মাপার যন্ত্র প্রেশার ভেন্ট দুর্ঘটনার সময় বন্ধ ও একটি ফ্লেয়ার সিস্টেম দুর্ঘটনার সময় অকেজো ছিল বলে প্রতিবেদনে উঠে আসে।

এ ছাড়া দুর্ঘটনার জন্য কারখানার অপারেশন, মেইনটেন্যান্স, প্রশাসন, সিভিল, অ্যাকাউন্টস বিভাগের সমন্বয়ের অভাব, কর্মকর্তাদের অদক্ষতা ও অবহেলাকে দায়ী করা হয়।

গত ২২ আগস্ট আনোয়ারার ডিএপি সার কারখানায় অ্যামোনিয়া ট্যাঙ্ক বিস্ফোরণ হয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ছাড়া অ্যামোনিয়া গ্যাস আশপাশের জলাশয়ে ছড়িয়ে পড়ায় মাছ মরে ভেসে ওঠে, গাছের রং সবুজ থেকে ফ্যাকাসে হয়ে যায়।

এ ঘটনার পর জেলা প্রশাসক তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। সেই কমিটি ঘটনার ৯ দিনের মাথায় এই তদন্ত প্রতিবেদন দিলো।

মতামত