টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

দু‘বছর মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মারা গেলেন ফটিকছড়ির ব্যবসায়ী এনামুল হক

জায়গা-জমির বিরোধে কুপিয়ে জখম

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

fatickchari(death-paindong)চট্টগ্রাম, ৩০ আগস্ট ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):বিগত দু‘বছর যাবৎ মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মৃত্যু বরণ করলেন ফটিকছড়ি বিবিরহাট বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসীয় এনামুল হক চৌধুরী(৪৫)। আজ মঙ্গলবার চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এনামুল হকের বাড়ি উপজেলার দিক্ষণ পাইন্দং গ্রামের শাহ চৌধরী বাড়ি প্রকাশ মানশাহ বাড়িতে। বাবা মৃত হাজী ছালেহ আহম্মদ।

২০১৪ সালের ৬ আগষ্ট জায়গা জমির বিরোধ নিয়ে তার মাথায় কুপিয়ে প্রচন্ড জখম করে তারই প্রতিবেশি মৃত আবুল কালামের ছেলে জামালের নেতৃত্বে তার ভাইসহ সাঙ্গপাঙ্গরা।

ঘটনার দিন সকাল আটটায় গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে নাজিরহ্টাস্থ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে, সেখান থেকে চমেক হাসপাতালে তার অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটনর হাসপাতাল, ডেল্টা হসপিটাল, প্রিমিয়ার হাসপাতালসহ নগরীর বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতালে নিভিড পরিচর্যা কেন্দ্রে রেখে চিকিৎসা করানো হলেও তার জ্ঞান ফিরেনি। প্রায় পাঁচ মাস পর কিছুটা উন্নতি হলে তাকে ভারতে চেন্নাই পাঠানো হয়। দু‘দফায় যাওয়ার পরও সেখানে দীর্ঘদিন চিকিৎসায় তার শরীরের অবস্থার কোন উন্নতি না হলে স¤প্রতি দেশে ফিরে আনেন। গত কয়েকদিন ধরে তার অবস্থা গুরুতর দেখে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে তার মৃত্য হয়।

নিহতের মেজ ভাই শামশুল আলম ঘটনার পর পর তখন ফটিকছড়ি থানায় জামালকে প্রধান আসামী করে একটি হত্যাচেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

তিনি আজ (মঙ্গলবার) বলেন, ‘সেদিনের ঘটনায় আমার ভাই ও ভাতিজাসহ সহ তিনজন গুরুতর কুপিয়ে জখম করে জামাল গং। ঘটনায় মামলা দায়ের করলেও আসামীরা প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করেছে। আমার ভাইয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে বর্তমানে তারা ঘা- ঢাকা দিয়েছে।

নির্মমভাবে আমার ভাই এর মাথায় কুপিয়েছিল তারা । লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করেও তাকে সুস্থ করা সম্ভব হয়নি। আমি প্রশাসনকে বিষয়টি অবহিত করেছি। অবিলম্বে আমার ভাইয়ের খুনির গ্রেফতার পূর্বক বিচার দাবী করছি।’

এদিকে নিহতের বাড়ি গিয়ে দেখা যায়, বাড়িতে লোকেলোকারণ্য, স্বজন আর বন্ধু বান্ধবরা ছুঁটে এসেছেন তাকে শেষবারের মতো বিদায় জানাতে। তবে, সবার মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

নিহত এন্মাুল হকের বন্ধু মোজাফ্ফর চৌধুরী বলেন, সে ছিল খুব পরোপকারী। ঘরের সবার চেয়ে জায়গা-জমি সংক্রান্ত সবকিছু বুঝতো বেশি, তাদের সম্পত্তি দখল করতে তাকে এভাবে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে।’

এনামুল হকের তাবাচ্চুম নামের তিন বছরের এক শিশু কন্যা রয়েছে। ওঠানে দোঁড়াদৌঁড়ি করছে সে। কিছুতে বুঝে উঠছে না, বাড়িতে কেন এতো লোকের ভিড়। সে যে বাবা নামক এক বটবৃক্ষ হারিয়ে পেলেছে।

মতামত