টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

শহীদ কাদরী আর নেই

Kobi-Kadriচট্টগ্রাম, ২৮  আগস্ট ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: একুশে পদক পাওয়া যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী খ্যাতিমান কবি শহীদ কাদরী আর নেই। নিউ ইয়র্কের নর্থ শোর বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে স্থানীয় সময় রবিবার সকাল ৭টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন) তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। কবিপত্নী নীরা কাদরী তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন।

জ্বর ও উচ্চ রক্তচাপের কারণে শহীদ কাদরীকে গত শনিবার স্থানীয় সময় রাত তিনটার দিকে নর্থ শোর বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শহীদ কাদরী ১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট কলকাতার পার্কসার্কাসে জন্ম নেন। ১০ বছর বয়সে পরিবারের সঙ্গে ঢাকায় চলে আসেন। ১৯৫৩ সালে মাত্র এগার বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন। তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘উত্তরাধিকার বের হয় ১৯৬৭ সালে, তখন তাঁর বয়স ২৫ বছর। স্বাধীনতার পর ১৯৭৮ সালে তিনি প্রবাসী জীবন বেছে নেন। প্রথমে জার্মানির বার্লিন, পরে লন্ডন হয়ে নিউইয়র্কে বসবাস করছিলেন তিনি।

শহীদ কাদরী ১৯৪৭-পরবর্তীকালে বাংলা সংস্কৃতির বিখ্যাত কবিদের একজনে পরিণত হন, যিনি নাগরিক-জীবন-সম্পর্কিত শব্দ চয়ন করে নাগরিকতা ও আধুনিকতাবোধের সূচনা করেন। আধুনিক নাগরিক জীবনের প্রাত্যহিক যন্ত্রণা ও ক্লান্তির অভিজ্ঞতাকে কবিতায় রূপ দেন তিনি। তার ভাষা, ভঙ্গি ও বক্তব্যের তীক্ষ্ণ শাণিত রূপ তার কবিতাকে এনে দেয় নতুন মাত্রা। তাঁর উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থগুলো হচ্ছে- উত্তরাধিকার (১৯৬৭), তোমাকে অভিবাদন প্রিয়তমা (১৯৭৪), কোথাও কোনো ক্রন্দন নেই, আমার চুম্বনগুলো পৌঁছে দাও (২০০৯)।

কবিতায় অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তিনি বাংলা একাডেমী পুরস্কার ও একুশে পদক (২০১১) পেয়েছেন। শারীরিক অসুস্থতার কারণে একুশের পদক তিনি নিজে গ্রহণ করতে পারেননি। তার পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন তার ঢাকার এক বন্ধু মফিদুল হক। তবে ওই বছরের ৬ মার্চ নিউইয়র্কে কবির হাতে সরকারের পক্ষ থেকে একুশে পদক তুলে দেয়া হয়। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছাও কবিকে প্রদান করা হয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত