টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সাকার রায় ফাঁসের মামলার রায় ফের পেছালো

চট্টগ্রাম, ২৮  আগস্ট ২০১৬ (সিটিজি টাইমস):: বিএনপির নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মানবতাবিরোধী অপরাধের রায় ফাঁসের মামলার রায় আজো হলো না।জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারনে মামলার আসামিরা আদালতে হাজির হতে না পারায় মামলার রায় পেছানো হলো।নতুন তারিখ এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

মামলার সরকারি কৌঁসুলি শামীম আহদেম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজ মামলার রায়ের তারিখ ছিল।কিন্তু আসামিরা আদালতে হাজির হতে পারেননি।জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারনে রাস্তাঘাটে গাড়ি চলছে না এবং একারণে আসামিরা হাজির না হওয়ায় আদালত আজ রায় দেননি।রায়ের নতুন তারিখ দেয়া হবে।

এর আগে ১৪ আগস্ট রায় ঘোষণার দিন ধার্য থাকলেও তা প্রস্তুত না হওয়ায় সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক কেএম শাসমুল আলম তা পিছিয়ে আজকের এ দিন ঠিক করেছিলেন।

ওইদিন সাকা চৌধুরীর ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী রবিবার ট্রাইব্যুনালে হাজির না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারিও করেছেন ট্রাইব্যুনাল।

গত ৪ আগস্ট আদালতে যাওয়ার সময় ডিবি তাকে আটক করেছে বলে তাঁর আইনজীবী দাবি করেছেন।তবে পুলিশ তা অস্বীকার করেছে। রবিবার তিনি ট্রাইব্যুনালে হাজির হননি এবং তার পক্ষে কোনো পদক্ষেপও না নেয়ায় আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

রায় ঘোষণা উপলক্ষে আসামি ব্যারিস্টার একেএম ফখরুল ইসলাম, ফারুক আহমেদ, মাহবুবুল আহসান ও নয়ন আলীকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়।

এর আগে তিনটি ধার্য তারিখে মামলটির যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে গত ৪ আগস্ট রায় ঘোষণার দিন ১৪ আগস্ট ধার্য করা হয়।

অন্যদিকে সাকার চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাদ কাদের চৌধুরী জামিনে থেকে ট্রাইব্যুনালে হাজির হন। মামলার অপর আসামি মেহেদী হাসান পলাতক আছেন।

এর আগে মামলাটিতে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করে ট্রাইব্যুনাল। এরপর মামলাটিতে ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ২১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে ওই মামলায় ২০১৪ সালের ২৮ আগস্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন গোয়েন্দা পুলিশ ডিবির ইন্সপেক্টর মো. শাহজাহান।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদেরকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। তবে রায় ঘোষণার আগেই সাকা চৌধুরীর স্ত্রী ও তার পরিবারের সদস্য এবং আইনজীবীরা রায় ফাঁসের অভিযোগ তোলেন। তারা ‘রায়ের খসড়া কপি’ সংবাদকর্মীদের দেখান। ওই মামলার চূড়ান্ত রায়ে ইতোমধ্যে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত