টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

রাউজানে দুস্কৃতিকারীদের আগুন পুড়ে ছাই স্কুলের ৬ কক্ষ

এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন
রাউজান প্রতিনিধি 

raozanচট্টগ্রাম, ২৭  আগস্ট ২০১৬ (সিটিজি টাইমস)::জড়ো হওয়া একদল শিক্ষার্থী ফেল ফেল করে তাকিয়ে আছে তার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির দিকে। কারো মুখ গুমোট। কারো মুখে আপসোসের সুর। প্রতিষ্ঠানটিকে তিল তিল করে যারা গড়ে তোলেছেন তাদের মাথায় পড়েছে হাত। স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি থেকে শুরু করে সাধারন মানুষের মনে জন্মেছে ক্ষোভের আগুন।

শনিবার সকালে এমন দৃশ্যেরই দেখা মিলেছে চট্টগ্রামের রাউজানের কদলপুর আইডিয়াল হাই স্কুলের সামনে। গতকাল শনিবার সকালে এই স্কুলের বর্ধিতাংশ সম্পূর্ণ পুড়ে দিয়েছে কিছু দু®কৃতিকারী। বেড়া ও টিনশেডের স্কুলটির ৬টি কক্ষ, টুল, ব্যাঞ্চ, আসবাবপত্রসহ পুরো স্কুলটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। এতে ক্ষয়ক্ষতি পরিমাণ ১২ লাখ টাকা বলে জানিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুল পুড়ে দেয়ার ঘটনায় কদলপুরের মানুষ ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে। এই ঘটনার নিন্দা ও দুস্কৃতিকারীদের বিচার দাবি জানিয়ে হাফেজ বজলুর রহমান সড়কে প্রতিবাদ সভা করেছে স্কুল কমিটি, শিক্ষার্থী ও স্থানীয় জনসাধারন।

স্কুলের পরিচালক জসিম উদ্দিন বলেন ‘বেড়া ও টিনশেডের স্কুল কক্ষটি পুড়ে যাওয়ার ঘটনায় ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে ১২ লাখ টাকার সম্পদ।’ তিনি বলেন ‘শুক্রবার রাতের অধিকাংশ সময় বজ্রবৃষ্টি হয়েছে। একারনে স্কুল ঘরও ভেজা ছিল। ধারনা করা হচ্ছে কোন পদার্থ ব্যবহার করে কোন শত্র“পক্ষ স্কুল ঘরটি পুড়ে দিয়েছে।’

কদলপুর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম উদ্দিন চৌধুরী বলেন ‘স্কুলের সাথে পার্শ্বস্থ সামান্য ভূমি নিয়ে এবং পাশের গরুর ব্যবসায়ীদের সাথে বিরোধ রয়েছে। জায়গার বিরোধ নিয়ে শনিবার সকাল ১০টায় স্কুল কর্তৃপক্ষ ও বিরোধীয় পক্ষের সাথে বৈঠকের কথা ছিল। হয়তো কোন শত্র“পক্ষ স্কুল আগুন লাগিয়ে দিতে পারে।

শনিবার সকালে স্কুল পাশ্ববর্তি হাফেজ বজলুর রহমান সড়কে প্রতিবাদ সভা করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন মফিজুল আলম চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধ হাশেম চৌধুরী, জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, সরোয়ার আলম চৌধুরী, মোবারক শাহ চৌধুরী, জসিম উদ্দিন, বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্য্য, মাওলানা খালেদ আনছারী, মুরাদুল হক চৌধুরী মেম্বার, ফরহাদুর রহমান চৌধুরী, প্রধান শিক্ষক অনিল কৃষ দাশ, কমল চক্রবর্তি মেম্বার, শাহজাদা মাকসুদ শাহ প্রমূখ।

উলে­খ্য যে, গত ২০০০সালে এলাকার কিছু শিক্ষা উৎসাহী মানুষ নিজেদের শ্রম ও অর্থে স্কুলটি গড়ে তোলে। বর্তমানে এ স্কুলে ৬শ শিক্ষার্থী ও ২০জন শিক্ষক রয়েছে। বর্তমানে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুসলিম উদ্দিন চৌধুরী।

মতামত