টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামেও সন্তোষ প্রকাশ ইংল্যান্ড পর্যবেক্ষক দলের

DSCচট্টগ্রাম, ১৯ আগস্ট (সিটিজি টাইমস): বাংলাদেশ সরকার ও নিরাপত্তা বাহিনীর কাছ থেকে পর্যাপ্ত সহযোগিতার জন্য সন্তোষ প্রকাশ করেছে সফররত ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক দল। শুক্রবার চট্টগ্রামের ম্যাচ ভেন্যু জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম, প্র্যাকটিস ভেন্যু এম এ আজিজ স্টেডিয়াম, টিম হোটেল পরিদর্শনের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠক করেন তারা। তবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি প্রতিনিধি দল।

ইসিবির ক্রিকেট অপারেশনের ডিরেক্টর জন কার বলেন, ‘ঢাকার পর আমরা চট্টগ্রামে সফর করলাম। এটা আমাদের রুটিন সফর। এর আগে আমরা ভারতেও সফর করেছি। আমরা এদেশের সরকার ও নিরাপত্তা বাহিনীর কাছ থেকে ভালো সহযোগিতা পেয়েছি।’

চট্টগ্রামের ভেন্যু সম্পর্কে তারা বেশ অবগত ছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এর আগে চট্টগ্রামে বিশ্বকাপের সময় ইংল্যান্ড দল এখানে খেলেছে। তাই চট্টগ্রামের ভেন্যু সম্পর্কে আমরা জানি।’

বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে অবশ্য কোনো মন্তব্য করতে চাননি তিনি। কার বলেন, ‘আমরা এখন কোনো মন্তব্য করবো না। আমরা দেশে ফিরে গিয়ে বাংলাদেশের নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করবো। প্রতিবেদনটি আমাদের সরকারকে দেবো।’

এদিকে বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন সাংবাদিকদের বলেন, ‘এর আগেও ইংল্যান্ড দল চট্টগ্রামে খেলে গেছে। তাই তারা চট্টগ্রামের সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে জানে। আমরা আমাদের সিকিউরিটি প্ল্যান, লজিস্টিক সুযোগ-সুবিধা তাদের সামনে উপস্থাপন করেছি। আরও বাড়তি নিরাপত্তা দরকার পড়লে আমরা সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সে ব্যবস্থা করবো। আমরা আশাবাদী ইংল্যান্ড দল বাংলাদেশে খেলতে আসবে।’

প্রসঙ্গত বুধবার তিন সদস্যের নিরাপত্তা পরিদর্শক দল বাংলাদেশ সফরে আসে। বৃহস্পতিবার তারা ঢাকাস্থ ব্রিটিশ, অস্ট্রেলিয়া ও আমেরিকান দুতাবাস, মিরপুর স্টেডিয়াম পরিদর্শক করেন। দেখা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে। শুক্রবার চট্টগ্রামের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও জহুর আহেমেদ স্টেডিয়াম পরিদর্শনে যান তার।

৩০ অক্টোবর দুই ম্যাচের টেস্ট ও ৩টি একদিনের ম্যাচ খেলার জন্য ঢাকায় আসার কথা ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের। মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ছাড়াও চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে হবে একটি টেস্ট, একটি ওয়ানডে ও ২টি প্রস্তুতি ম্যাচ।

নিরাপত্তার অজুহাতে গেলো বছর নির্ধারিত সফর বাতিল করে অস্ট্রেলিয়া। এমনকি অনুর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপেও দল পাঠায়নি তারা। সম্প্রতি বাংলাদেশে জঙ্গি হামলার পর ইংল্যান্ড সফর নিয়েও দেখা দেয় অনিশ্চিয়তা। তবে সরকারের পক্ষ থেকে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার আশ্বাস দেয়া হয়েছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত