টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে রাতের আধাঁরে যুবক খুন: অন্ধকারে হত্যার রহস্য

মীর মাহফুজ আনাম 
ফটিকছড়ি থেকে

Murderচট্টগ্রাম, ১৪  আগস্ট (সিটিজি টাইমস): ফটিকছড়িতে রিপন দে (১৮) নামের এক হিন্দু যুবক খুন হয়েছেন। তিনি উপজেলার ভূজপুর থানাধীন সুয়াবিল বারমাসিয়া উত্তর হিন্দু পাড়ার গণেশ দের একমাত্র ছেলে। রোববার(আজ) সকালে বৈদ্যেরহাট সংলগ্ন এলাকা থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশের ধারণা রাতের আধাঁরে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

স্থানীয় টিলা পাড়ার বাসিন্দা দুলাল দে জানান, ‘সকাল ৬ টায় কাজের উদ্দেশ্যে বাড়ী থেকে বের হলে বৈদ্যুরহাট বাজার মসজিদের পাশের রাস্তায় তার রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখে তাঁর পরিবারে খবর দিই। পরে স্বজনেরা এসে তার লাশ সনাক্ত করেন।

রিপনের স্বজনেরা জানান, তিনি দীর্ঘদিন থেকে উপজেলার বৈদ্যেরহাট বাজারে ‘জিসান সিএনজি গ্যারেজে’ চাকরী করত। কর্মস্থল থেকে তার বাড়ীর দূরত্ব এক কিলোমিটার। শনিবার রাত সাড়ে বারটায় গ্যারেজ থেকে বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিলেও ঘরে না ফেরায় পরিবারের লোকজন তল¬াশী চালায়। এ সময় তাঁর মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। এসময় পরিবারের লোকজন ধারণা করেন, হয়ত কোথাও অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন।

রিপনের বাবা গনেশ দে রোববার সাংবাদিকদের জানান, ‘বেশ শান্ত স্বভাবের ছেলে রিপন। কারো সাথে শত্র“তা থাকতে পারে বলে বলে মনে হয়না। তিনি তাঁর ছেলে হত্যার বিচার দাবী করেন।’

জানতে চাইলে জিসান সিএনজি গ্যারেজের মালিক মো. হেলাল জানান, ‘সর্বশেষ রাত সাড়ে বারটায় গ্যারেজ বন্ধ করে সে বাড়ীর উদ্দেশ্যে বের হয়। ভোর সকালে শুনতে পাই তার রক্তাক্ত লাশ পড়ে আছে বাড়ির পাশে রাস্তায়।’

ভূজপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুহাম্মদ হেলাল উদ্দিন জানান, লাশের বুকে চিদ্র এবং হাতে দুইটি জখমের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে রাতের আধাঁরে লোহার রড় দিয়ে তাঁকে কুঁচিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

ভূজপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম লিয়াকত আলী বলেন, ‘নিশ্চিত হওয়া গেছে এটা খুন। তবে, এখনো কারণ উদঘাটন সম্ভব হয়নি। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে মামলা হয়েছে।’

এদিকে সরেজমিনে দুপুরে গিয়ে নিহতের বাড়িতে দেখা যায়, রিপনের মায়ের বুকফাটা আর্তনাতে আকাশটা ভারী হয়ে উঠেছে। একমাত্র ছেলেকে হারিয়ে মা যেন পাগলপ্রায় । বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন। তাকে সান্তনা দেওয়ার ভাষা যে খুঁজে পাচ্ছেনা তার প্রতিবেশিরা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত