টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামের বোয়ালখালীসহ ৬ উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুৎ, শনিবার প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধন

চট্টগ্রাম, ১১  আগস্ট (সিটিজি টাইমস): দেশের ৬টি উপজেলার শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন করেছে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বাপবিবো)। উপজেলাগুলো হলো- গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া, নারায়নগঞ্জের বন্দর, নরসিংদির পলাশ, চট্টগ্রামের বোয়ালখালী, কুমিল্লার আদর্শ শহর ও চাপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট। আগামী শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপজেলাগুলোর বিদ্যুতায়নের শুভ উদ্বোধন করবেন।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু এ তথ্য জানান।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলেনে বক্তব্য রাখছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। ছবি অর্থসূচক।
প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে নেওয়া লক্ষ্যমাত্রা ৭৬ শতাংশ গ্রাহক সংযোগ ইতোমধ্যে অর্জিত হয়েছে। বাপবিবোর ৭৮টি শাখা অফিসের মধ্যে ৬টি এর আওতায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া, নারায়ণগঞ্জের বন্দর, নরসিংদির পলাশ, চট্রগ্রামের বোয়ালখালী, কুমিল্লার আদর্শ শহর ও চাপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। এ ৬ উপজেলায় মোট গ্রাহক সংখ্যা ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬০০ টাকা। এতে ব্যয় হয়েছে ৫৩৫ কোটি টাকা। আগামী শনিবার ভিডিও কনেফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী এই বিদ্যুতায়ন উদ্বোধন করবেন।

নসরুল হামিদ বিপু বলেন, ২০১৮ সালের মধ্যে ৪৬৫টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ এগিয়ে চলছে। ১৪টি প্রকল্পের মাধ্যমে এ কার্যক্রমের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩১ হাজার কোটি টাকা। আরো ৭টি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে, যার ব্যয় ধরা হয়েছে ১৯ হাজার কোটি টাকা। ২০১৭ সালের ডিম্বেরের মধ্যে ৯৫টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, সারাদেশে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে আরও ৩ বছর আমাদের কাজ করতে হবে। কাজ এগিয়ে চলছে। আর সাশ্রয়ী মূল্যে বিদুৎ দিতে ৪ থেকে ৫ বছর কাজ করতে হবে।

তিনি আরও জানান, ২০১৮ সালের মধ্যে ৯৫ শতাংশ গ্রাহককে সংযোগের আওতায় আনতে প্রতিমাসে ৩/৪ লাখ সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। ২০১৬ সালের মধ্যে ৭৬ শতাংশ, ২০১৭ সালের মধ্যে ৮৭ শতাংশ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বর্তমানে মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদন ৩৮০ কিলোওয়াট এবং ক্যাপটিভসহ বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ১৪ হাজার ৫৬৫ মেগাওয়াট। চলতি বছরের নভেম্বরে ১৫০০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন উৎসব পালন করা হবে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত