টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জলাবদ্ধতা নিরসনে চাক্তাই খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন , সাত দফা দাবি

DSCচট্টগ্রাম, ০৬  আগস্ট (সিটিজি টাইমস)::  চট্টগ্রামের বাণিজ্যকেন্দ্র চাক্তাই, খাতুনগঞ্জ ও আছাদগঞ্জের জলাবদ্ধতা নিরসনে কর্ণফুলী নদীতে ড্রেজিং, প্রতিরক্ষা বাঁধ ও স্লুইস গেইট নির্মাণসহ সাত দফা দাবি জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।শনিবার ‘চাক্তাই-খাতুনগঞ্জ আড়তদার সাধারণ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি’ আয়োজিত এক কর্মসূচিতে তারা এ দাবি জানান।

জলাবদ্ধতা নিরসন দাবিতে বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন ব্যবসায়ীরা।

মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে সমিতির সভাপতি সোলায়মান বাদশা বলেন, “প্রধানমন্ত্রী ও পানিসম্পদ মন্ত্রীকে বলতে চাই, এখানকার ব্যবসায়ীরা ভোগ্যপণ্য আমদানি-রপ্তানির ব্যবসা করলেও পুরোপুরি বঞ্চিত।জলাবদ্ধতায় আমাদের কোটি টাকার পণ্য নষ্ট হয়। তাই ব্যাংকের দেনা শোধ করতে না পেরে কেউ কেউ দেউলিয়া হয়ে যায়। জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রয়োজনে কঠোর কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন কখনও বিফলে যায় না। এ সময় তিনি সাত দফা দাবি ঘোষণা করেন।

এর মধ্যে আছে- কর্ণফুলী নদীতে ড্রেজিং করে নাব্যতা ফেরানো ও নদী থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, স্থায়ী প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মাণ, খালের মুখে স্লুইস গেইট এমন পদ্ধতিতে স্থাপন যাতে পণ্যবাহী ট্রলার ও নৌকা প্রবেশ করতে পারে, জঙ্গিবাদ থেকে চাক্তাই-খাতুনগঞ্জকে রক্ষা, গণশৌচাগার স্থাপন, কমিউনিটি হল নির্মাণ ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা।

ব্যবসায়ীদের নির্ধারিত কর্মসূচির শেষ মুহূর্তে বেলা ১২টায় সমাবেশস্থলে আসেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ব্যবসায়ীদের দাবিকে ‘ন্যায্য ও যৌক্তিক’ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “অতীতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা না নেওয়ায় আজ এ সমস্যা প্রকট হয়েছে। বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি, সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়া, অপরিকল্পিতভাবে নালা-নর্দমা নির্মাণ ও খালি জমি কমে যাওয়াতে জোয়ারেরি পানির উচ্চতাও বাড়ছে।

চাক্তাই খাল খনন করলেই সমস্যার সমাধান হবে না উল্লেখ করে নাছির বলেন, “এখন কম পানিতে জলাবদ্ধতা হচ্ছে, তখন বেশি পানিতে হবে।তবে আশার আলো দেখছি। পানি সম্পদমন্ত্রী কর্ণফুলী নদীর তীরে বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্পে রাজি হয়েছেন। দেড় মাসের মধ্যে এর ডিপিপি চূড়ান্ত হবে। পাঁচ মাসের মধ্যে প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন হবে। ওই প্রকল্পের অধীনে নগরীর ২৬টি খালের মুখে স্লুইস গেইট হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, সর্বসাকুল্যে দুই মাসের মধ্যে কর্ণফুলীতে ড্রেজিংও শুরু হবে।

সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মীর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুস সালাম, চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক পরিচালক আলমগীর পারভেজ, বক্সিরহাট ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর জামাল হোসেন, ব্যবসায়ী নেতা জাহাঙ্গীর আলম, নুরুদ্দিন ও মো. সাহাবুদ্দিন।

চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় ভোগ্যপণ্যের এই পাইকারি বাজারে গত বুধবার থেকে জোয়ারের সময় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। এলাকাটিতে জলাবদ্ধতার সমস্যা কয়েক বছরের পুরনো হলেও এবার জোয়ারে নতুন নতুন এলাকায়ও পানি উঠতে দেখা গেছে।

মতামত