টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

খালেদাকে বলেছি ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন করা যাবে না

চট্টগ্রাম, ০৫  আগস্ট (সিটিজি টাইমস):: জামায়াত ছাড়ার পাশাপাশি খালেদা জিয়াকে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার দিন জন্মদিন পালন না করার অনুরোধ করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আবদুল কাদের সিদ্দিকী। তবে এসব প্রস্তাবের বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন কিছু বলেননি।

দুপুরে মতিঝিলে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ নেতা। গতরাতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চা চক্রের আমন্ত্রণে ফিরোজায় যান কাদের সিদ্দিকী। খালেদা জিয়ার জঙ্গিবিরোধী জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে আলোচনার অংশ হিসেবেই এই বৈঠক হয়। এতে উঠে আসা নানা কথা তুলে ধরতেই এই সংবাদ সম্মেলন ডাকেন কাদের সিদ্দিকী।

এক প্রশ্নের জবাবে জনতা লীগ নেতা বলেন, ‘খালেদাকে বলেছি ১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন করা যাবে না।আমি তাকে বলেছি বঙ্গবন্ধু আমার ভালোবাসা। তাকে অবহেলা করে রাজনীতি করতে চাইলে আমি সেখানে থাকবো না।’

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার দিন খালেদা জিয়ার এই জন্মদিন পালন নিয়ে নানা সমালোচনা আছে। ওই দিনটি খালেদা জিয়ার প্রকৃত জন্মদিন নয় বলে অভিযোগ করে আসছে আওয়ামী লীগ। নেতাদের অভিযোগ, জাতীয় শোক দিবসকে অপমান করতে খালেদা জিয়া তার এই মিথ্যা জন্মদিন সাজিয়েছেন।

খালেদা জিয়ার এই জন্মদিন পালন মূলত নব্বই দশকের মাঝামাঝি সময় থেকে। ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর যে জীবনবৃত্তান্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পাঠানো হয় তাতে ১৫ আগস্ট জন্মদিন উল্লেখ করা ছিল না। পরে ১৯৯৩ সাল থেকে তার এই দিন জন্মদিন পালনের তথ্য পাওয়া যায়। আর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ঘোষণার পর থেকে এই দিন খালেদা জিয়া কেক কেটে ঘটা করে জন্মদিন পালন শুরু করেন।

বিএনপির সাবেক মন্ত্রী নাজমুল হুদাও সম্প্রতি রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় বলেছেন, খালেদা জিয়ার প্রকৃত জন্মদিন ১৫ আগস্ট নয়। ক্ষমতায় থাকতে ওইদিন জন্মদিন পালন না করতে অনুরোধ করেছিলেন তিনি। তবে তখন বিএনপি নেত্রী তার কথা শোনেননি।

১৫ আগস্ট জন্মদিন পালন না করার বিষয়ে আপনার অনুরোধের বিষয়ে খালেদা জিয়া কী বলেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘তিনি কেবল শুনেছেন, কিছু বলেননি।’

আর কী কী প্রস্তাব দিয়েছেন- জানতে চাইলে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে জামায়াত ছাড়ার পরামর্শ দিয়েছে। বলেছি, দেশের সংকটময় মুহূর্তে যদি জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজন হয় তাহলে আপনাকে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করতে হবে।’

জনতা লীগ নেতা বলেন. ‘খালেদাকে বলেছি বঙ্গবন্ধু ছাড়া রাজনীতি করবো না। জামায়াতকে নিয়ে রাজনীতি করবো না। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর চামড়া দিয়ে যারা ডুগডুগি বাজাতে চেয়েছে তাদের সঙ্গেও জাতীয় ঐক্য করবো না। এই প্রশ্নের জবাবে খালেদা জিয়া কী বলেছেন- জানতে চাইলে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘দেখা যাক সামনে কী হয়।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানান কাদের সিদ্দিকী। বলেন, ‘৭১ সালে দেশের স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব যেমন অপরিহার্য ছিল, তেমনি দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এমন অবস্থায় রয়েছেন। তিনি যদি জাতীয় ঐক্যের প্রচেষ্টা না করেন তাহলে খালেদা জিয়ার ডাকে জাতীয় ঐক্য হয়ে যাবে। তাও যদি তা হয় তাহলে অন্য কারো হাতে এই নেতৃত্ব চলে যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে ছাড়া যেমন জাতীয় ঐক্য যেমন সম্ভব নয়, তেমনি খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়েও জাতীয় ঐক্য সম্ভব নয়।’

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত