টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জাতীয়করণের দাবী নিয়ে টানা আন্দোলেনে নাজিরহাট কলেজের শিক্ষার্থীরা

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি থেকে

Fatickchariচট্টগ্রাম, ০২ আগস্ট (সিটিজি টাইমস):: জাতীয়করণের দাবী নিয়ে টানা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে নাজিরহাট কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিগত পাঁচদিন ধরে লাগাতার ক্লাস বর্জন করে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি মহাসড়কে শিক্ষার্থীরা নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে। সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ মিছিল, সমাবেশ, মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান, অধ্যক্ষের কক্ষে তালা দেওয়াসহ নানা কর্মসূচি করেছে প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। এ আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করার প্রস্তুতি গ্রহন করছে শিক্ষার্থীরা।

ঐতিহ্যবাহী নাজিরহাট কলেজকে ইতিপূর্বে সরকার ঘোষিত ১৯০টি কলেজকে জাতীয়করনে এ কলেজকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। কিন্তু ওই তালিকা থেকে কলেজটি বাদ দিতে একটি মহল উঠেপড়ে লাগে। বিশেষ করে হাটহাজারী-ফটিকছড়ি সীমান্তবর্তী নাজিরহাট কলেজকে জাতীয়করণ করা হচ্ছে তেমন খবর প্রচার হলে আন্দোলনে নামে সদরের হাটহাজারী কলেজ। যেখানে প্রায় টানা পনের দিন আন্দোলন চালিয়ে যান ওই কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিষয়টি যখন স্থানীয় সাংসদ ও পানি সম্পদমন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের দৃষ্টিগোচর হয় তখন পাল্টে যেতে তাকে পুরানো চিত্র।

এলাকায় খবর রটে; মন্ত্রী নিজেই নাজিরহাট কলেজের গভর্ণিং বডির সভাপতি হওয়া সত্বেও রাজনৈতিক ও ভোটের হিসেব নিকাশে নাজিরহাট কলেজকে বাদ দিয়ে হাটহাজারী কলেজকে সরকারী করণের জন্য গুরুত্ব প্রদান করছেন। তবে অধ্যক্ষ এস. এম. নুরুল হুদা বলেন, মন্ত্রী হাটহাজারী কলেজ ও নাজিরহাট কলেজকে একসাথে জাতীয়করণের প্রচেষ্টায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন।’

নাজিরহাট কলেজের প্রাক্তন ছাত্র জাহাঙ্গীর উদ্দিন মাহমুদ বলেন, ‘চট্টগ্রামের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী কলেজটি জাতীয়করণের জন্য সবচেয়ে বেশি উপযুক্ত ও দাবীদার। এটি সরকারী করণে ষড়যন্ত্র করা সত্যিই দু:খজনক। ন্যায্য দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোন চালিয়ে যেতে হবে।’

কলেজের বর্তমান ছাত্র রেজাউল করিম ইমন বলেন, জাতীয়করণের নিশ্চয়তা না পাওয়া পর্যন্তকঠোর কমর্সূচী দিয়ে আমাদের ন্যায্য দাবী আদায় করে নেব।’

মতামত