টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আমাদের দেশের মানুষ আবহমান কাল ধরে শান্তিপ্রিয় ও ধর্মভীরু কিন্তু উগ্র ও ধর্মান্ধ নয়

আইআইইউসি’র পাঁচ সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রীর জঙ্গীবাদ বিরোধী মানববন্ধনে প্রোভিসি ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন

IIUC'r-Manabbandhanচট্টগ্রাম, ০১ আগস্ট (সিটিজি টাইমস)::  আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর প্রো ভাইস চ্যান্সেলর (চলতি দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন বলেছেন, আমাদের দেশের মানুষ আবহমান কাল ধরে শান্তিপ্রিয় ও ধর্মভীরু কিন্তু উগ্র ও ধর্মান্ধ নয়। তিনি বলেন, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসবাদ একটি ব্যাধি। সমাজকে এ ব্যধিমুক্ত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা প্রয়োজন এবং একই সাথে আক্রান্ত তরুণ প্রজন্মের মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন।

আজ সোমবার সকাল ১১ টায় আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর কুমিরায় নিজস্ব ক্যাম্পাসে পাঁচ সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীর অংশগ্রহণে গুলশান ও শোলাকিয়ার মর্মান্তিক ঘটনা স্মরণে মানববন্ধন, শোকর‌্যালী এবং আলোচনা কর্মসূচীর উদ্বোাধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি’র ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বক্তব্য রাখেন আইআইইউসি’র কলা ও মানবিক অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক, শরী‘য়াহ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. গিয়াসউদ্দীন হাফিজ, ফিমেল একাডেমিক কমপ্লেক্সের চীফ-ইনচার্জ প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. শাফিউদ্দিন মাদানী, স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের পরিচালক আ. জ. ম. ওবায়েদুল্লাহ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারী প্রক্টর জাহেদ হোসাইন ভূঁইয়া। উল্লেখ্য সকাল দশটা থেকেই ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কুমিরায় নিজস্ব ক্যাম্পাসে ভিড় করতে থাকে। সকাল এগারটা বাজতেই বিশাল জনারণ্যে পরিণত হয় আইআইইউসি ক্যাম্পাস, কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই ছিলনা। উদ্বোাধনী আনুষ্ঠানিকতার পরেই শুরু হয় র‌্যালী ও মানববন্ধন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানচলাচলে যাতে বিঘ্ন না ঘটে সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আইআইইউসি’র ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রং বেরঙের ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার নিয়ে দীর্ঘ মানবববন্ধন তৈরি করে, যা আইআইইউসি’র প্রধান তোরণ থেকে একদিকে চলে যায় ছোট কুমিরা পর্যন্ত, আরেকদিকে চলে যায় বার আওলিয়া পর্যন্ত।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন পাাঁচ সহস্রাধিক ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, তারা যেন এ ধরণের ভুল পথে কখনও পা না বাড়ায়। তিনি তাদের বন্ধুবান্ধব এবং আত্মীয়-স্বজনদের দিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখার আহবান  জানান। অনুষ্ঠানে অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান হাদীস ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. নাজমুল হক নদভী, আইআইইউসি‘র রেজিস্ট্রার স্কোয়াড্রন লীডার (অবঃ) মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম, সেন্টার ফর ইউনিভার্সিটি রিকয়ার্মেন্ট কোর্সেস এর পরিচালক প্রফেসর ড. এ. কে. এম শাহেদ, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রধান সিরাজুল ইসলাম, ইংরেজী ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের প্রধান ইফতেখার উদ্দিন, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ মেহেদী হাসান, কু’রানিক সায়েন্স বিভাগের প্রধান ড. মোস্তফা কামিল, ইটিই বিভাগের প্রধান আবদুল গফুর, ইইই বিভাগের প্রধান আতাহার উদ্দিন, আইন বিভাগের প্রধান সাইদুল ইসলাম এবং ফার্মেসী বিভাগের প্রধান মাসুদুর রহমান।

এদিকে মানববন্ধন, শোকর‌্যালী শেষে মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন প্রো ভাইস চ্যান্সেলর (চলতি দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানী, ফিমেল একাডেমিক কমপ্লেক্সের চীফ-ইনচার্জ প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান এবং মুনাজাত পরিচালনা করেন কলা ও মানবিক অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের পরিচালক আ. জ. ম. ওবায়েদুল্লাহ। আগামী ৫ আগস্ট মাস্টার্সের সকল ক্লাস এবং ৬ আগস্ট অনার্সের সকল ক্লাস কুমিরায় নিজস্ব ক্যাম্পাসে শুরু হবে বলে এ অনুষ্ঠানে ঘোষণা দেয়া হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

মতামত