টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

কক্সবাজারে আবাসিক কটেজে উচ্ছেদ অভিযান

কক্সবাজার ব্যুরো অফিস

Cox-Picচট্টগ্রাম, ১৭ জুলাই (সিটিজি টাইমস)::  সরকারী জায়গায় ‘অবৈধ স্থাপনা’ করার অভিযোগে কক্সবাজার শহরের কলাতলী সৈকত সংলগ্ন একটি আবাসিক কটেজে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে। এসময় কটেজের গেইট, সীমানা দেয়াল ও সৌন্দর্যবর্ধকারী স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

রবিবার (১৭ জুলাই) দুপুরে ‘ডিভাইন ইকো-রিসোর্টস এন্ড রেস্টুরেন্ট’ নামক আবাসিক কটেজে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তুষার আহমদ ও কক্সবাজার সদর ভূমি কর্মকর্তা (এসিল্যান্ড) মাজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়।

সরকারী জায়গায় ‘অবৈধ স্থাপনা’ করায় তা উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে জানান কক্সবাজার সদর ভূমি কর্মকর্তা (এসিল্যান্ড) মাজহারুল ইসলাম। তিনি বলেন, সরকারী জায়গায় কারো স্থাপনা করার অধিকার নাই। জমির মালিক দাবীদার ব্যক্তি স্বপক্ষে ‘গ্রহণযোগ্য’ কোন ডকুমেন্ট দেখাতে পারেননি। সরকারী খাস খতিয়ানের তুলনামূলক বিএস দাগ-২০০০১ ভুক্ত জমিতে নির্মিত ‘অবৈধ স্থাপনা’ উচ্ছেদ করা হয়েছে।

তবে, কটেজ মালিক মো. মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী শাওন আদালতের আদেশ অমান্য করে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ আনেন।
কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা মৌজার ২০০০১ ও ২০০২৬ দাগের ১৫২ শতক জমির ক্রয়সুত্রে বৈধ মালিক দাবী করেন শাওন।

জেলা প্রশাসকের পক্ষে ‘সার্ভে কমিটির রিপোর্ট’ অনুযায়ী তার দখলে কোন অবৈধ জমি নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘অনাপত্তি’ দিয়ে জমিতে আমার স্বত্ত¡ স্বীকার করেছেন আদালতের জিপি। এসিল্যান্ড ও তহসিলদার এর রিপোর্টও পক্ষে রয়েছে। বৈধ জমিতেই আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

তিনি আরো জানান, জমির উপর স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে গত ০৮/০৩/২০১০ ইং কক্সবাজার যুগ্ম-জেলা জজ ২য় আদালতের বিচারক রঞ্জন কুমার সাহা নির্দেশ দেন।

অথচ উচ্ছেদ আভিযানের আগে কোন নোটিশ দেয়া হয়নি।

একটি বিশেষ মহলের ইন্দনে বিনা নোটিশে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত