টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামের তিন মসজিদ নজরদারিতে

sচট্টগ্রাম, ১৬ জুলাই (সিটিজি টাইমস):: নগরীর অন্তত তিনটি বড় মসজিদে জঙ্গিদের যাতায়ত রয়েছে জানিয়ে এসব মসজিদে সন্দেহভাজন লোকজনের ওপর মনিটরিং কাজ আরও জোরদার করতে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রতি অাহ্বান জানিয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ।

শনিবার (১৬ জুলাই) দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে ইমাম ও খতিবদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় ডিসি এ আহবান জানান। সন্ত্রাস ও জঙ্গি হামলা প্রতিরোধ বিষয়ে ইমাম ও খতিবদের এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন। এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. মেজবাহ উদ্দিন।

এদিকে, আহলে হাদিসের অনুসারীরা জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করেছেন চট্টগ্রামের বিশিষ্ট আলেমরা। বিভিন্ন মসজিদে ইমাম-খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আহলে হাদিসের এমন অনুসারীদের গোয়েন্দা নজরদারিতে রাখারও দাবি জানিয়েছেন তারা।

সভায় নগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার (বিশেষ শাখা) কাজিমুর রশিদ জানান, নগরীর আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদ, মেহেদীবাগ এলাকায় চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ পরিচালিত মসজিদ ও রহমতগঞ্জে গৃহায়ণ ও গণপূর্তের মসজিদে সন্দেহভাজন লোকজনের যাতায়াত রয়েছে।

তাদের সাথে কারা যোগাযোগ রাখেন, কখন কখন আসেন সেবিষয়ে মসজিদের ইমাম ও খতিবদের পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গটি টেনে জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের কাছেও তথ্য রয়েছে, এই তিনটি মসজিদসহ আরো কয়েকটি মসজিদে সন্দেহভাজন লোকজনের আনাগোনা রয়েছেে। এক্ষেত্রে সকল গোয়েন্দা সংস্থাগুলো আরো জোরালোভাবে একযোগে কাজ করতে হবে। বিশেষ করে আমাদের র্যাবের সোর্স খুবই স্ট্রং। পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ আছে। অন্য গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এই ধরণের তথ্য সংগ্রহে কাজ করবেন বলে আশা করছি। ইমাম খতিবসহ আমরা সকলে একযোগে কাজ করলে এসব খারাপ লোক খারাপ কাজের সাহস পাবেনা। যারা বিপদগামী হয়েছেন তারা পার পাবেনা। সেজন্য সকলে ইসলামের মূল বাণী বুঝিয়ে দিতে হবে।’

সভায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম কার্যালয়ের পরিচালক আবুল হায়াত মো.তারেক জানিয়েছেন, জঙ্গিবাদে উসকানি দিয়ে তাদের উৎসাহিত করে এমন কোনও বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে কিনা তা খুঁজে বের করতে চট্টগ্রাম নগরী ও জেলার মসজিদগুলোর খুতবা মনিটর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। নগরী ও জেলার ৯ হাজার ১০টি মসজিদের খুতবা মনিটর করতে একটি সেল গঠন করা হয়েছে। যেটি আগামীকাল রোববার থেকে কাজ শুরু করবে। একাজে ইসলামি ফাউন্ডেশনের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করবেন বলেও জানান তিনি।

সম্প্রতি জঙ্গিবাদের উস্কানির অভিযোগে বাংলাদেশে বন্ধ করে দেওয়া পিস টিভি বন্ধ হলেও ‘পিস’ নামে অনেক প্রতিষ্ঠান ও প্রকাশনা এখনো চলছে বলে অভিযোগ করেছেন ইমাম ও খতিবরা। তারা বলছেন, এসব প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে পিস টিভির মালিক ও বিতর্কিত বক্তা জাকির নায়েকের মতাদর্শ প্রচার করা হচ্ছে। পাশাপাশি জাকির নায়েকের বক্তব্য ডাবিং করা প্রতিষ্ঠানকে চিহ্নিত, তার বক্তব্য প্রচার করে এমন প্রকাশনা বন্ধের দাবি জানানো হয়।

এর প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেছেন, পিস টিভির বক্তাদের নামের তালিকা চেয়েছি। পিস নামে যেসব প্রতিষ্ঠান রয়েছে সেগুলোরও তালিকা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একই সভায় আহলে হাদিসের অনুসারীরা জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করেছেন ইমাম ও খতিবরা। যেসব মসজিদে আহলে হাদিসের অনুসারীরা ইমাম-খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তাদের গোয়েন্দা নজরদারিতে রাখারও দাবি জানিয়েছেন তারা।

সভায় বক্তব্য রাখেন, নগরীর আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদের ইমাম সৈয়দ আনোয়ার হোসেন তাহের আল জাবেরি, নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের সিনিয়র ইমাম মাওলানা নুর মোহাম্মদ সিদ্দিকী, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলীয়া মাদ্রাসা শিক্ষক আবুল আসাদ মো. জোবাইর রেজভি, সুবহানিয়া আলীয়া মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ হামিদুল্লাহ খাঁ জামে মসজিদের ইমাম জুলফিকার আলী, র্যাব চট্টগ্রামের উপ পরিচালক মেজর জাহাঙ্গীর, চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মশিউদৌল্লাহ রেজাসহ সরকারি বিভিন্ন সংস্থা ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত