টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

বিদায় ক্যামেরন, স্বাগত থেরেসা

woচট্টগ্রাম, ১৩ জুলাই (সিটিজি টাইমস)::  ক্ষমতার পালাবদলের মুহূর্তে দাঁড়িয়ে যুক্তরাজ্য। ইতোমধ্যেই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন ক্যামেরন। নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে চলেছেন থেরেসা মে।

মার্গারেট থ্যাচারের পর এই প্রথম কোনো নারী প্রধানমন্ত্রী পেতে চলেছে যুক্তরাজ্য। তবে মের সমানে পাহাড়সম চ্যালেঞ্জ, যা তাকে মোকাবিলা করতেই হবে।

দেশটিতে ক্ষমতা হস্তান্তরের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন পার্লামেন্টে প্রশ্নোত্তর পর্বে যোগ দিয়েছেন। এটিই পার্লামেন্টে ক্যামেরনের শেষ উপস্থিতি। তারপর টেরেসা মে শপথ নেবেন।

বিদায় দিনে হাসিখুশি মেজাজে আছেন ক্যামেরন। পার্লামেন্টে (হাউস অব কমন্স) পৌঁছানোর পর সংসদ সদস্যরা ক্যামেরনকে অভ্যর্থনা জানান। সেখানে কৌতুক করে কথা বলতে দেখা গেছে তাকে।

পার্লামেন্টে ক্যামেরন বলেছেন, ‘আজকের দিনের বাকি সময়টা তার জন্য স্মরণীয়ভাবে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে। কারণ এ সময়ে তিনি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের সাক্ষাৎ পাবেন।’

ক্যামেরন তার বক্তব্যে স্ত্রী সামান্থা ও সন্তানদের প্রতি উষ্ম অভিবাদন জানান। তা ছাড়া তার সরকারের সব সহকর্মী ও কর্মকর্তাদের ধন্যবাদ জানান তিনি।

২০০৫ সালে টরি পার্টির প্রধান নেতা হওয়ার পর থেকে দলকে শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যেতে কঠোর পরিশ্রম করেছেন তিনি। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের বিরুদ্ধে বিরোধী দল হিসেবে টরি পার্টিকে দৃঢ়ভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

ক্যামেরনের উত্তরসূরি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতায় আসছেন থেরেসা মে। ক্যামেরন সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মে ছিলেন ইউরোপীয় ইউনিয়নে (ইইউ) যুক্তরাজ্যের থাকার পক্ষে।

ইইউয়ে থাকার পক্ষে নেতৃত্ব দিয়ে হেরে গিয়ে ক্ষমতা ছাড়ার ঘোষণা দেন ক্যামেরন। কিন্তু একই অবস্থানে থেকে মে হতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী। ফলে তার সামনে অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। যুক্তরাজ্যে ঐক্য ফিরিয়ে এনে অর্থনীতির চাকা ঠিক রাখার দায়িত্ব পড়ছে তার ঘাড়ে।

২৬ বছর পর নারী প্রধানমন্ত্রী পাচ্ছে ব্রিটেন: এদিকে ২৬ বছর পর ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন একজন নারী। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ দলের নেতা টেরিজা মে ছয় বছর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দ্বায়িত্বে থাকার পর ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন। ডেভিড ক্যামেরন ইস্তফা দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন তিনি।

গণভোটে ইইউ থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়া নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর পদত্যাগের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন।

১৯৭৯ থেকে টানা ১১ বছর ক্ষমতায় ছিলেন লৌহমানবী হিসেবে পরিচিত মার্গারেট থ্যাচার। ১৯৯০ সালের পর মে হতে যাচ্ছেন যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় নারী সরকার প্রধান।

যুক্তরাজ্যের ইইউতে থাকার পক্ষে থাকলেও ৫৯ বছর বয়সী এই নারীকে এখন ঠিক উল্টো কাজটি করতে হবে। তার নেতৃত্বেই ইইউ থেকে দেশকে বার করে আনার প্রক্রিয়া চলবে।

বিদায় ডাউনিং: ব্রিটেনের বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বিদায় জানিয়েছেন তার সরকারি বাসভবন ডাউনিং স্ট্রিটকে। এখন তিনি যাচ্ছেন রানির রাজপ্রাসাদ বাকিংহাম প্যালেসে। সেখানে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগপত্র জমা দেবেন তিনি।

পার্লামেন্টে নিজের শেষ অধিবেশনে যোগ দেওয়ার পর ডাউনিং স্ট্রিটে শেষবারের মতো যান ক্যামেরন। সেখানে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা রেখে তিনি রওয়ানা হন বাকিংহাম প্যালেস অভিমুখে।

এর আগে,পার্লামেন্টে নিজের শেষ অধিবেশনে (প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত প্রশ্নোত্তর পর্ব) স্ট্যান্ডিং ওভেশন (দাঁড়িয়ে সম্মান) পান ক্যামেরন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত