টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

জোট নেতাদের জরুরি তলব খালেদার

চট্টগ্রাম, ১৩ জুলাই (সিটিজি টাইমস):: আলোচনার জন্য ২০ দলীয় জোটে নেতাদেরকে ডেকেছেন জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার ও শায়রুল কবির খান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বুধবার রাত ৮টায় বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠকটি হওয়ার কথা রয়েছে।

বিএনপির শীর্ষ নেতা ও জোটের শরিক দলের নেতারা সুনির্দিষ্টভাবে জানাতে পারেননি কেন তাদেরকে এই জরুরি তলব। তবে তাদের ধারণা, গুলশান ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ময়দানে জঙ্গি হামলার পর উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে।

এই দুই হামলার পর বিএনপির নেতারা সরকারি দলের নেতাদের প্রতি ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন। জঙ্গি হামলার ঘটনায় বিএনপিকে জড়িয়ে রাজনৈতিক বক্তব্য না দিতেও আহ্বান জানিয়েছেন তারা। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতারা অবশ্য বলছেন, বিএনপির সঙ্গে আলোচনায় আপত্তি নেই তাদের। তবে এ জন্য বিএনপিকে তাদের জোটসঙ্গী জামায়াতকে ছাড়তে হবে। আর বিএনপি এই শর্তে রাজি নয়।

জোটের শরিক দলের শীর্ষনেতাদের এই বৈঠকে জামায়াতকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা। তবে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির এই বৈঠকে যোগ দেবেন কি না তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি। মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে শীর্ষ নেতাদের বিচার শুরুর পর আত্মগোপনে যাওয়া জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমাদকে সেভাবে প্রকাশ্যে দেখা যায়নি। জোটের বৈঠকে তার বদলে জামায়াতের অন্য নেতারা মাঝেমধ্যে প্রতিনিধিত্ব করেন। কখনও আবার বৈঠকে জামায়াতের কোনও প্রতিনিধি থাকেনও না।

বিএনপি এবং জোট নেতাদের ধারণা, এই বৈঠকের পর জোটের পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি জোটের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনও আহ্বান জানানো হতে পারে।

জানতে চাইলে বিএনপির এক নেতা বলেন, কেবল শরিক দলের নেতাদেরকে ডেকেছেন জোট নেত্রী। এই বৈঠকে তাদেরকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি।

২০ দলের শরিক দল জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান  বলেন, গুলশান ও আশুলিয়া হামলার পর দেশে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উগ্রবাদ। আমার ধারণা, এই বিষয়টিই আলোচনায় গুরুত্ব পাবে। এর পাশাপাশি ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) যদি মনে করেন, তাহলে তিনি অন্য কোনও বিষয় নিয়েও কথা বলতে পারেন। তবে আমাদেরকে এসব বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

মতামত