টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আর্টিজানে তিন বাংলাদেশি তরুণ-তরুণী নিহত

চট্টগ্রাম, ০২ জুলাই (সিটিজি টাইমস):: গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে শুক্রবার রাতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত ২০ জনের মধ্যে তিন বাংলাদেশি তরুণ-তরুণর নাম জানা গেছে। তারা হলেন- ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের নাতি ফারাজ হোসেন, ল্যাভেন্ডারের মালিকের নাতনি অবিন্তা কবীর এবং জেডএক্সওয়াই ইন্টারন্যাশনালের হিউম্যান রিসোর্স বিভাগের পরিচালক ইশরাত আকন্দ।

ফারাজ হোসেন

ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের মেয়ে সিমিন হোসেনের দুই ছেলের মধ্যে ফারাজ হোসেন ছোট। তিনি শুক্রবার রাতে নিজে গাড়ি চালিয়ে ওই ক্যাফেতে যান।

ট্রান্সকম কনজ্যুমার প্রডাক্টসের বিপণন কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ তাহনুন ইশতিয়াক রিয়াদ বলেন, দুই ভাইয়ের মধ্যে ফারাজ ছোট। তিনি বর্তমানে ট্রান্সকম গ্রুপে শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করেছিলেন বলে জানান রিয়াদ।

অবিন্তা কবীর

সুপার স্টোর ল্যাভেন্ডারের মালিক মনজুর মোরশেদের নাতনি অবিন্তা কবীর তিন দিন আগে আমেরিকা থেকে দেশে ফিরেছেন। দেশে ফিরেই জঙ্গি হামলার শিকার হন তিনি।

এলিগ্যান্ট গ্রুপের ক্যাসোভিয়া ফ্যাশনের মার্চেন্ডাইজার খোকন জানান, তিন দিন আগে আমেরিকা থেকে দেশে ফেরেন অবিন্তা। ভারতীয় ও কানাডীয় দুই বান্ধবীকে নিয়ে ওই রেস্তোরাঁয় খেতে গিয়েছিলেন অবিন্তা। সঙ্গে দুজন গানম্যানও ছিল। তারাও জঙ্গি আক্রমণে গুরুতর আহত হয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি আছেন। অবিন্তার বাবা আমেরিকার নাগরিক। মা রুবা আহমেদ বাংলাদেশি হলেও আমেরিকার নাগরিকত্ব পেয়েছেন।

ইশরাত আকন্দ

জঙ্গি হামলায় নিহত ইশরাত আকন্দ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী। তবে তিনি অস্ট্রেলিয়ায় উচ্চতর ডিগ্রি নিয়েছেন। তিনি জেডএক্সওয়াই ইন্টারন্যাশনালের হিউম্যান রিসোর্স বিভাগের পরিচালক ছিলেন। এছাড়া হোটেল ওয়েস্টিন অ্যান্ড রিসোর্টের মার্কেটিং বিভাগের পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি। এর আগে তিনি বিজিএমইএর মানবসম্পদ বিভাগের কনসালটেন্ট ছিলেন।

ইশরাত আকন্দের নিহতের খবর শুনে তার এক সহকর্মী ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেন, “হাসিমাখা মুখটিকে আর দেখা যাবে না। মার্কেটিং এবং মানবসম্পদ জগতের মানুষ হলেও সংস্কৃতি অঙ্গনে ছিল তার সমান পদচারণা। গুলশানে সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করেছে।-ঢাকাটাইমস

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত