টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ঈদের আমেজ, ফাঁকা হচ্ছে চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম, ০১ জুলাই (সিটিজি টাইমস):: কাল ছিল সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঈদুল ফিতরের আগে শেষ কর্ম দিবস। এর পর টানা ৯দিন ছুটি। তাইতো বৃহস্পতিবার একটু দ্রুতই অফিস থেকে বের হয়েছেন অনেকে। আর ঈদের আনন্দ গ্রামে স্বজনদের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে দুপুরের পরই চট্টগ্রাম ছাড়তে শুরু করেছেন তারা। কেউ আবার আগেই পরিবারের সদস্যদের গ্রামে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তাদের চট্টগ্রাম ছাড়ার কারণে ফাঁকা হতে শুরু করেছে বন্দরনগরীর রাস্তাগুলো।

জানা গেছে, সরকারি চাকরিজীবীদের একটি বড় অংশ বৃহস্পতিবার ঘরে ফিরতে শুরু করেছে। সকাল থেকে এই যাত্রা শুরু হলেও পরিবহন-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, সন্ধ্যার পর থেকে শুরু হয়ে গভীর রাত পর্যন্ত এই চাপ থাকবে সবচেয়ে বেশি।

সকাল থেকে চট্টগ্রাম রেলস্টেশন, বিআরটিসি মোড়, জিইসি মোড়, একে খান ও অলংকার মোড়ে যাত্রীদের প্রচুর ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ঘরমুখো যাত্রীদের চাপ সামলাতে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে সূত্র। বিভিন্ন পরিবহন সংস্থা চালু করেছে অতিরিক্ত ট্রিপ।

জানতে চাইলে দেশর অন্যতম বড় বাস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হানিফ পরিবহনের জ্যেষ্ঠ মহাব্যবস্থাপক আবদুস সামাদ মণ্ডল বলেন, সকাল থেকেই চাপ আছে। তবে বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত মানুষের প্রচণ্ড চাপ রয়েছে। মূলত আজকেই সবচেয়ে বেশি মানুষ ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন। মহাসড়কেও তাই এই দিন চাপ বেশি থাকছে।

সরকারি চাকরিজীবী আবদুল মান্নানের সঙ্গে দুপুরে কথা হয় বাস টার্মিনালে। পরিবার সদস্যদের আগেই গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জে পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি। সকালে ঈদের আগে শেষ অফিস করে তিনি বাড়িতে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, ‘বেশ লম্বা একটা ছুটি পেয়েছি। নয় দিনের এই ছুটিতে এবার আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে পারব। তাই এবারে বাড়ি ফেরার আনন্দ অন্য রকম।’

সরেজমিনে দেখা গেছে, শহরের মূল সড়ক ছাড়া অলিগলিতে রিকশা, অটোরিকশা চলাচল কমতে শুরু করেছে। রাস্তাঘাটেও লোকজনের নিত্যদিনের ভিড় তেমন লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। সিটিবাসগুলোয় যেখানে আগে দেখা যেত যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়, সেখানে অপেক্ষাকৃত কম যাত্রী নিয়ে চলাচল করছে।

প্রসঙ্গত, গত ২২ জুন নির্বাহী ক্ষমতায় এবার টানা ৯দিন ছুটি ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৪ জুলাই ছুটি থাকায় ১ থেকে ৯ জুলাই পর্যন্ত টানা ৯ দিন ছুটি থাকছে এবারের ঈদে।

 

মতামত