টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চিনির সঙ্গে তেল কিনতে ‘বাধ্য করায়’ মীর গ্রুপের ২২ লাখ টাকা জরিমানা

003

ছবিঃ অনুপম বড়ুয়া

চট্টগ্রাম, ২৭  জুন (সিটিজি টাইমস)::  খুচরা বিক্রেতাদের চিনির সঙ্গে তেল কিনতে ‘বাধ্য করায়’ চট্টগ্রাম নগরীর খাতুনগঞ্জে মীর গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইবনাত ট্রেডার্সকে ২২ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ সোমবার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনুর রহমানের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে এই জরিমানা করা হয়েছে।

কোম্পানীর এক কর্মচারী মালিকপক্ষ তাদের ওই নির্দেশনা দিয়েছিল বলে স্বীকার করলেও সে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইবনাত ট্রেডার্সের কর্ণধার ও মীর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর মোহাম্মদ হোসাইন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনুর বলেন, ইবনাত ট্রেডার্সের কর্মকর্তা জানে আলমকে ২০ লাখ টাকা ও অন্য দুই কর্মচারী কাঞ্চন মজুমদার ও আবুল কাশেমকে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। একই অপরাধে মীর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে এক মাস কারাদ-ের পাশাপাশি ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। কর্মচারীদের পক্ষে এ জরিমানা মালিকপক্ষকেই দিতে হবে বলে রায় দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এর আগে গত ৮ জুন মিল থেকে ৪৬ টাকা কেজিতে কেনা চিনি পাইকারিতে ৫৮ টাকায় বিক্রি করায় খাতুনঞ্জের হাজী মীর আহমদ ট্রেডার্সকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

দেশের বৃহত্তম ভোগ্যপণ্যের বাজার খাতুনগঞ্জের মীর গ্রুপের প্রতিষ্ঠান হাজী মীর আহমদ ট্রেডার্স এভাবে প্রতিদিন দুই কোটি ৪০ লাখ টাকা অতিরিক্ত মুনাফা করছিল বলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অনুসন্ধানে জানা যায়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনুর বলেন, চট্টগ্রামের খুচরা বাজারে শীর্ষস্থানীয় চিনি বিক্রেতা মীর গ্রুপ সম্প্রতি বাজারে ইবনাত ব্র্যান্ডের তেল বাজারে আনে। বাজারজাতকরণের শুরুতেই তারা ‘চিনির সঙ্গে তেলও কিনতে হবে’ বলে ব্যবসায়ীদের শর্ত জুড়ে দেয়। এতে চট্টগ্রামের চিনির বাজার ‘অস্থিতিশীল’ হয়ে পড়ে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, “এভাবে নন ব্র্যান্ডের একটি তেল তো খুচরা বাজারে বিক্রি হতে পারে না। খুচরা বিক্রেতারা তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তেলের বিনিময়ে চিনির দাম হুট করে বাড়িয়ে দিলেন। নানা মহল থেকে এরপর অভিযোগ আসতে থাকে। আজ আমরা অভিযোগের সত্যতা পেলাম।” ইবনাত ট্রেডার্স থেকে নিয়মিত চিনি কিনতেন নগরীর বহদ্দারহাটের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম।

তিনি বলেন, “মীর গ্রুপ হঠাৎ ঘোষণা দেয়, চিনির সঙ্গে আমাদের তেলও কিনতে হবে। চিনি না কিনলে আমাদের তেল দেবে না বলেও জানিয়েছে তারা। আমাদের কোনো আপত্তিই তারা শুনতে চাইল না।”

খোরশেদ আলম বলেন, ৭ হাজার ৮০০ টাকা দরে প্রতি তিন বস্তা চিনির সঙ্গে ১৪০০ টাকা দরে এক টিন তেল কিনতে তাদের ‘বাধ্য’ করা হয়। পাঁচ বস্তা চিনির সঙ্গে কিনতে হত দুই টিন তেল।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মীর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসাইন বলেন, “কর্মচারীরা আসলে আমার নির্দেশনা ঠিকমতো বুঝতেই পারেননি।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত