টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

নাছির এলেন, চলে গেলেন মহিউদ্দিন

চট্টগ্রাম, ২৩ জুন (সিটিজি টাইমস)::  চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর বক্তব্যের শেষ দিকে অনুষ্ঠানস্থলে আসেন সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন।বক্তব্য শেষ করে মঞ্চ থেকে নেমে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন মহিউদ্দিন। এসময় ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মীও তার সঙ্গে চলে যান।

তবে যাওয়ার আগে আ জ ম নাছিরের সাথে সালাম বিনিময় ও করমর্দন করেন মহিউদ্দিন। দুই শীর্ষ নেতার মধ্যে এছাড়া আর কোনো কথা হয়নি।

দলের ৬৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ এই আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। বৃহস্পতিবার নগরীর লাভ লেইনের একটি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে দলের ‘নিস্ক্রিয়’ নেতাকর্মীদেরও সমালোচনা করেন মহিউদ্দিন।

বিকাল ৫টা ৫০ মিনিটের দিকে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য শুরু করেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। ৬টা ১০ মিনিটের দিকে অনুষ্ঠানস্থলে আসেন আ জ ম নাছির। এর পাঁচ মিনিট পরই মহিউদ্দিনের বক্তব্য শেষ হয়।

আ জ ম নাছির মঞ্চের বাম পাশে থাকা ডায়াস থেকে ফেরার সময় নাছিরের সাথে সালাম বিনিময় হয় মহিউদ্দিনের। এরপর দুই নেতা হাতও মেলান।
এরপরই মঞ্চ থেকে বেরিয়ে যান মহিউদ্দিন চৌধুরী। এসময় তার সাথে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী ছিলেন।

মহিউদ্দিনের পরপরই সভাস্থল ত্যাগ করেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জহিরুল আলম দোভাষ।

মহিউদ্দিনের পর আরও দুই বক্তার বক্তব্য শেষে বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের আরেক সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। নিজের বক্তব্য শেষে তিনিও চলে যান।

দোভাষ ও সুজন নগরীর রাজনীতিতে মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মহিউদ্দিন চৌধুরীর ব্যক্তিগত সহকারী ওসমান গণি বলেন, তিনি (মহিউদ্দিন) বাইরে কোথাও ইফতার করেন না।জিইসি মোড়ে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেই প্রতিদিন তিনি ইফতার করেন। আজও তিনি এখানেই ইফতার করেছেন। তারপর বাসায় গেছেন।

নগরীর রাজনীতিতে মহিউদ্দিন ও নাছিরের বিরোধ দীর্ঘদিনের। গত সিটি নির্বাচনের পর কিছুদিন দুই নেতার বিরোধ অপ্রকাশ্য ছিল।

সম্প্রতি প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্ব, প্রিমিয়ারের শিক্ষার্থী খুন ও চট্টগ্রাম-মহসিন কলেজে দুই নেতার অনুসারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ ঘিরে বিরোধ আবার আলোচনায় আসে।

মতামত