টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ক্রসফায়ার নয় ফাহিমকে হত্যা করা হয়েছে

চট্টগ্রাম, ২৩ জুন (সিটিজি টাইমস):: ‘ক্রসফায়ার’ নয়, সন্দেহভাজন জঙ্গি গোলাম ফায়জুল্লাহ ফাহিমকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এই ঘটনাকে সম্পূর্ণ সাজানো উল্লেখ করে তিনি এ ঘটনার বিচার দাবি করেছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানে ইমানুয়্যেল’স ব্যাঙ্কুইট হলে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলের শরিক বাংলাদেশ লেবার পার্টির আয়োজিত ইফতার মাহফিলে এসব কথা বলেন তিনি।

খালেদা জিয়া অভিযোগ করে বলেন, “দেশে যেসব অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে, তার সঙ্গে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও পুলিশ জড়িত।” তিনি বলেন, “সারা দেশে সাধারণ মানুষ ও বিএনপির নেতাকর্মীরা অত্যাচারিত হচ্ছেন। তারা ন্যায়বিচার পাচ্ছেন না। কারাগারে চিকিৎসা পান না তারা। কারাগার থেকে মুক্তি পেলে আবার কারাফটক থেকেই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।”

গণগ্রেপ্তারের নামে সারা দেশে বিএনপি ও অন্যান্য বিরোধী দলের নেতাকর্মী এবং সাধারণ মানুষকে অত্যাচার করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

কথিত বন্দুকযুদ্ধে সন্দেহভাজন জঙ্গি ফাহিমের নিহত হওয়ার কথা উল্লেখ করে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, “এটা সম্পূর্ণ একটা সাজানো ঘটনা। তাকে কোনো ক্রসফায়ার নয়, তাকে হত্যা করা হয়েছে। আর পুলিশ হত্যা করা মানে হাসিনা এর সঙ্গে ইনভলবড। কেননা হাসিনা হলো হোম মিনিস্টার (অবশ্য এখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল)। কাজেই আমরা বলতে চাই, এই নিরীহ হত্যার বিচার হওয়া দরকার।”

প্রধানমন্ত্রী বা মন্ত্রী-এমপি নয়, বিএনপি গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য আন্দোলন করছে বলেও দাবি করেন তিনি।

খালেদা জিয়া আরও বলেন, “আওয়ামী লীগের মুখে বড় বড় কথা আর বুলি। মিথ্যা কথা ছাড়া যেমন সত্য কথা কোনো দিন বলে না, তেমনি তারা একটার পর একটা অন্যায়, অপরাধ ও দেশবিরোধী কাজ করে।”

যত দিন যাচ্ছে দেশ তত খারাপের দিকে যাচ্ছে- মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, “আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে তখন নতুন নতুন কিছু করে থাকে যা দেশের জন্য ক্ষতিকর। এ থেকে দেশকে উদ্ধার করা কঠিন হয়ে পড়ে।”

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আজকে বিচার বিভাগকে শেষ করে দেয়া হয়েছে। বিএনপি সেখানে ন্যায়বিচার পায় না। দেশে চলছে দুই ধরনের বিচার। আওয়ামী লীগের জন্য এক ধরনের, আর বিএনপিসহ সাধারণ মানুষের জন্য আরেক ধরনের বিচার। জামিন পেলেও নতুন নতুন মামলায় আটক দেখানো হয় এমনকি জেলগেট থেকে ফের গ্রেফতার করা হয়। বিএনপিসহ বিরোধী দলের লোকদের কারাগারে চিকিৎসা দেয়া হয় না। ইতোমধ্যে বেশ কয়েক নেতা কারাগারে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুবরণও করেছে।”

ক্ষমতাসীনদের নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে খালেদা বলেন, “শেখ হাসিনাকে লুটেরাদের রাজা-রানী যাই বলেন না কেন তিনিই লুটেরাদের প্রধান।”

লেবার পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট নেতাদের মধ্যে জামায়াতের কর্মপরিষদের সদস্য সেলিম উদ্দিন, জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মতামত