টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মক্কার পথে-প্রান্তরেঃ আড়াই হাজার ফুট ওপরে ইফতার

শহীদ ইসলাম বাবর
মক্কা থেকে

bচট্টগ্রাম, ২১ জুন (সিটিজি টাইমস)::  মসজদিুল হারামাইনের অভ্যন্তর আর বাহিরের মাঠে সামনে বসা লাখো রোজাদার নারী পুরুষ। সামনে হরেক রকমের ইফতার সাজানো। মাগরিবের আজান হলেই ইফতার সারবে তারা। আর লাখো রোজাদার নর-নারী ও মসজিদুল হারামাইনে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীদের নিরাপত্তার নিশ্চিত করণের লক্ষে হেলিকপ্টার থাকে আকাশে। প্রায় ২ হাজার ৫ ফুট উপরে টহল দেওয়া এসব হেলিকপ্টারে অবস্থানরত পাইলট ও নিরাপত্ত কর্মীরা ইফতার সারেন সেখানেই। থমর (খেজুর) ও পানি দিয়ে মূলত তারা ইফতার সারেন। জানা যায়, মসজিদুল হারামাইন, বিভিন্ন টানেল, পাহাড়, এক্সপ্রেসওয়ে, আবাসিক এলাকাসহ সর্বত্র পাখির চোখ দিয়ে নিরাপত্তা তল্লাসী করে থাকেন। যে কোন পরিস্থিতি সাথে সাথে তারা জানান, অপারেশন রুমকে। আর এ অপারেশন রুম থেকেই নেওয়া হয় দ্রæত ব্যবস্থা। এমনটিই খবর দিয়েছে সৌদি গেজেট। সূত্রে প্রকাশ, জোহর নামাজের সময় ঘনিয়ে আসলে লোকজন হারাম অভিমুখে যাত্রা শুরু করে থাকেন। তবে প্রচন্ড দাবদাহের কারনে ব্যাপক সংখ্যা লোকের সমাগম ঘটে আসর নামাজ ও ইফতারের আগেকার সময়ে। এ সময়ে মক্কার সব সড়ক দিয়ে পাযে হেটে লাখো মানুষ মসজিদুল হারামে যেতে দেখা যায়। ওমরা হজ্বে আগ¦ত হাজি সাহেব ও মক্কাবাসীদের নিরাপত্তার জন্য সমতল থেকে আড়াই হাজার ফুট উপরে অবস্থান করা এসব মানুষদের আবার ইফতার নিয়ে নেই কোন আহমরী আয়োজন। শুধুমাত্র খেজুর ও আর পানিতেই শেষ তাদের ইফতার পর্ব। এক ফাইলট জানালেন আহমরী ইফতার আয়োজন উদেশ্য নয়, আল্লাহর মেহমানদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করনের কাজকেই আমরা প্রধান কাজ মনে করি।

ঐ পাইলট সংবাদ মাধ্যমকে জানান, জেদ্দার নিরাপত্তা ঘাটি থেকে যাত্রা শুরু হয়ে চলে আসে মক্কার দিকে। আর এসময় আকাশ থেকে দেখা যায়, মক্কার সংস্কারে নেওয়া বিশাল বিশাল প্রকল্প সমূহ।

হেলিকপ্টার অতিক্রম করে মক্কা-জেদ্দা এক্সপ্রেসওয়েতে শুমাইসি ও হলি কোরআন গেটওয়ের চেক পয়েন্ট। তার পর মাগরিবের আগ মুর্হুতে হেলিকপ্টারটি পৌছায় পবিত্র মক্কা নগরীতে। সেখানে মসজিদুর হারামাইনের চারপাশ একাধিক বার চক্কর দিতে থাকে হেলিকপ্টারটি। তারা সেখানে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনকালেই শুরু হয় মুয়াজ্জিনের সুমধুর কণ্ঠে নামাজের আহবান (আজান)। আর আজান শুনেই ইফতার সারেন রোজাদার লাখো নারী-পুরুষ।

মতামত