টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামের শহরের রিকশা চালক সেই ফাতেমা পেলেন নতুন রিকশা

fচট্টগ্রাম, ১৮ জুন (সিটিজি টাইমস):: চট্টগ্রামের শহরের রিকশা চালক ফাতেমা। সংসারে একমাত্র আয়ের উৎস তিনিই। স্বামী আরেকটি বিয়ে করে চলে যাওয়ায় সন্তানদের ভরণ পোষণের দায়িত্ব পড়ে তার ঘাড়েই। তবে সে দায়িত্বের চাপ ভেঙ্গে না পড়ে সাহসী এই নারী রিকশা চালিয়ে জীবন সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। অসংখ্য পুরুষদের ভিড়ে ভড়কে না গিয়ে সাবলীলভাবে তার জীবনচলা মুগ্ধ করে অনেককে। রিকশা চালিয়েই সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ যোগান তিনি। দুই ছেলে আর এক মেয়ে প্রত্যেকেই পড়াশুনা করছেন।

তবে এতদিন অন্যের রিকশা চালিয়ে আসছিলেন ফাতেমা। দিন শেষে রোজগারের অনেকটা তাই রিকশার মালিককে জমা দিতে হত। অবশেষে একটি ফেসবুক ইভেন্টের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের অনেকের সহায়তায় নতুন একটি রিকশার মালিক হলেন তিনি।

f2
শুক্রবার (১৭ জুন) বিকেলে চট্টগ্রামের চেরাগী পাহাড় মোড়ে ফাতেমার হাতে নতুন রিকশা তোলে দেয়া হয়। এছাড়া নগদ আরও ৫ হাজার টাকা উপহার দেয় হয় ফাতেমাকে।

গত বছরের ২৯ নভেম্বর তার সাথে পরিচয় অনলাইন এক্টিভিস্ট সৃজিতা মিতুর । পরিচয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে মিতু ‘মানুষের কথায় কান দেই না, মানুষ কি খাওয়ায় নাকি?’ শিরোনামের একটি প্রতিবেদন লেখেন।

প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর সাড়া পড়ে যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। বিভিন্নজন বিভিন্নভাবে তাকে সাহায্যের আশা দেয়ার কথা জানান। এই ধারাবাহিকতাতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে “ফাতেমা খালার জন্য একটি রিক্সা” নামের একটি ইভেন্টের তৈরি করেন সৃজিতা মিতু ও সাংবাদিক মারজিয়া প্রভা।

এই ইভেন্টে সংগ্রামী এই নারীকে আরেকটু অনুপ্রেরণা দিতে এগিয়ে আসেন অনেকে। দেশ এবং দেশের বাইরে মানুষদের সহায়তায় অবশেষে চট্টগ্রামের একমাত্র নারী এই রিকশা চালককে নতুন রিকশা উপহার দেয়া হল।

নতুন রিকশা পেয়ে আবেগে কেঁদে ফেলেন ফাতেমা। এই প্রতিবেদকের কাছে তিনি বলেন, “আমি কখনো কল্পনাও করিনি আমার নিজের একটি রিক্সা হবে,আমি আজ খুবই খুশী, যারা আমাকে সাহায্য করেছেন, পাশে থেকেছেন সবার জন্য দোয়া করি, সবাইকে থ্যাংকিউ”।

এই ব্যাপারে ইভেন্ট হোস্ট সৃজিতা মিতু ও মারজিয়া প্রভা বলেন, “আমরা ও সিলেটটুডের মাধ্যমে যারা সাহায্য করেছেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই”।

তারা বলেন, “আমরা উদ্যোক্তা মাত্র, দেশ ও দেশের বাইরে যারা সাহায্য করেছেন তাদের সাহায্য ছাড়া আমাদের এই উদ্যোগ কখনোই সফল হতোনা,তাদের সাহায্য সহযোগীতায় আমরা ঈদের আগেই ফাতেমা খালার হাতে রিক্সা তোলে দিতে সক্ষম হয়েছি।”

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত