টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

লোহাগাড়ায় ৬ ইউপি নির্বাচনে নৌকার জয় জয়কার

চট্টগ্রাম, ০৪  জুন (সিটিজি টাইমস):  লোহাগাড়া উপজেলার ৬ ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থীদের জয় জয়কার হয়েছে। তবে বহিরাগতরা কেন্দ্র দখল করে ভোট লুট করার অভিযোগও উঠেছে। বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে গতকাল লোহাগাড়ায় ৬ ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৩ চেয়াম্যান প্রার্থী বিভিন্ন অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জন করেছেন। সূত্রে প্রকাশ, নির্বাচনে অনিয়ম, ভোট লুট ও অভিযোগ করার পরও প্রশাসনের সহযোগিতা না পাওয়ায় ভোট বর্জন করেছেন ধানের শীষ প্রতীকের চুনতি চেয়ারম্যান প্রার্থী নূর মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ্, পুটিবিলা ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী ফরিদ মুন্সী ও আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ ফরিদুল আলম। এদিকে চরম্বার মেম্বার প্রার্থী মো: আলীও ভোট বর্জনের ঘোষনা দেন। বেলা ১২টার মধ্যেই এ ঘোষনা দেন বর্জনকারীরা। বড়হাতিয়ায় ৮হাজার ৭৬ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আনারস প্রতীক প্রার্থী এম.ডি. জুনাইদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী নৌকা প্রতীক প্রার্থী সাজেদুর রহমান দুলাল পেয়েছেন ৫ হাজার ৪’শ ৬৬ভোট। চুনতিতে ১০হাজার ৭’শ ৭৪ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জয়নাল আবেদীন জনু। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী নূর মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ্ পেয়েছেন ২ হাজার ৩’শ ৮৮ ভোট। পুটিবিলায় ৭হাজার ৯’শ ১২ভোট পেয়েছেন নৌকা প্রতীক প্রার্থী হাজ্বী ইউনুছ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আনারস প্রতীক প্রার্থী ফরিদুল আলম পেয়েছেন ২ হাজার ৩’শ ৭২ ভোট। চরম্বায় ৫হাজার ৪’শ ২৯ ভোটে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীক প্রার্থী মাষ্টার শফিকুর রহমান। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী চশমা প্রতীক প্রার্থী শফিকুল ইসলাম পেয়েছে ২হাজার ৫’শ ৬৬ ভোট। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কলাউজানে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন নৌকা প্রতীক প্রার্থী এম.এ.ওয়াহেদ। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী চশমা প্রতীক প্রার্থী মোহাম্মদ শাহাব উদ্দিন। পদুয়ায় বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আনারস প্রতীক প্রার্থী জহির উদ্দিন। নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী অটোরিক্সা প্রতীক এডভোকেট হুমায়ুন কবির বাদ্শা। ভোটার এলাকা কেন্দ্র পরিদর্শন করে দেখা যায়, সকালে যথাসময়ে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। ১০টার পর থেকে বিভিন্ন ইউনিয়নে ছোট-খাটো বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটতে থাকে। বিশেষ করে পুটিবিলা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক প্রার্থী হাজ্বী মোহাম্মদ ইউনুচ এর সমর্থকরা প্রায় কেন্দ্র তাঁদের প্রভাবের মধ্যে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে কতিপয় উত্তেজিত সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের ফরিদুল আলমের নির্বাচনে ব্যবহৃত গাড়ির উপর হামলা চালিয়ে গাড়ির ক্ষতি সাধন করে। পরে তিনি কেন্দ্র দখল, এজেন্ট ও সমর্থকদের মারধরসহ ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ এনে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন বর্জনের কথা সাংবাদিকদের সম্মুখে ঘোষণা দেন। একই ইউনিয়নের ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী ফরিদ মুন্সীও নির্বাচনে সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় না থাকার কারণে নির্বাচন বর্জন করার কথা ঘোষনা দেন। অনুরূপ কারণে নির্বাচন বর্জনের কথা ঘোষনা দেন চুনতি ইউনিয়নের ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী নূর মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ্। তিনি জানান, প্রতিটি কেন্দ্র নৌকা প্রতীক প্রার্থী প্রভাব খাটিয়ে দখলে নিয়েছেন এবং প্রত্যেক কেন্দ্র তাঁর এজেন্ট ও সমর্থকদের মারধর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছেন। তিনি আরো উল্লেখ করেছেন, সকাল অনুমানিক পৌঁন ৯টায় চুনতি আদর্শ হাফেজিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে সমস্ত এজেন্টদেরকে বের করে দেন। এভাবে প্রতিটি কেন্দ্রে ভয়ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা তাদের দখলে নিয়ে নেন। এই ব্যাপারে তিনি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিভিন্ন দাপ্তরিক কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেছেন বলে তিনি জানান। যে কারণে তিনি নির্বাচন বর্জনের কথা ঘোষনা দেন। চরম্বা ইউনিয়নে দুই চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সামশুল ইসলাম ও শফিকুল ইসলাম নৌকা প্রতীক প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখলের অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের কথা ঘোষনা দিয়েছেন। একই কারণে উক্ত ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার পদপ্রার্থী মোহাম্মদ আলী ভোট গ্রহণ শুরুর পরপরই নির্বাচন বর্জনের কথা ঘোষনা দিয়েছেন। অপরদিকে পদুয়া ধলিবিলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র, চুনতি কাঠালিয়া পাড়া কেন্দ্র ২ মেম্বার পদপ্রার্থী সমর্থকদের সংঘর্ষে মো: সেলিম নামে এক যুবক আহত হয়েছেন, কলাজউজান এয়াকুব-বজলুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র, বড়হাতিয়া সিঙ্গীশাহ্ প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও চাঁদির পাড়া কেন্দ্রে বিছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেছে বলে সূত্রে জানা গেছে।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত