টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

ফটিকছড়িতে প্রবাসীর স্ত্রী নিখোঁজ, মায়ের অপেক্ষায় দুই সন্তান

মীর মাহফুজ আনাম
ফটিকছড়ি প্রতিনিধি

9a866605-8e7d-4574-b906-db7795d5b87dচট্টগ্রাম, ০৪  জুন (সিটিজি টাইমস):   ফটিকছড়িতে এক প্রবাসী স্ত্রী গত দু‘দিন যাবৎ নিখোঁজ রয়েছে। উপজেলা সদরের বিবিরহাট বাজার থেকে কেনাকাটা করে বাড়ি ফেরার সময় বিবিরহাট বাজারের তিন রাস্তার মোড় থেকে নিখোঁজ হন তিনি। তার নাম ফাতেমা আকতার ডলি (২৫)। তিনি উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন রহমান আলী সরকার বাড়ির ওমান প্রবাসী ইলিয়াসের স্ত্রী। তিনি দুই সন্তানের জননী। এ নিয়ে থানায় নিখোঁজ ডায়েরী করেছেন তার দেবর ইদ্রিছ রায়হান। একই সাথে তিনি বিষিয়টি লিখিতভাবে র‌্যাব-৭ কে জানিয়েছেন।

সরজমিনে নিখোঁজ হওয়া ফাতেমা আকতারের শশুর বাড়িতে গিয়ে জানা যায়, শুক্রবার বিকেল চারটার দিকে তিনি ননদ পুতুল আকতারকে সাথে নিয়ে বিবিরহাট বাজারে কাপড় ক্রয় করতে যান। যেখানে প্রায় তিনি পরিবারের একাধিক সদস্য ও নিজের জন্য প্রায় ১১ হাজার টাকার কাপড় ক্রয় করেন। সন্ধ্যা সাতটার দিকে তিনি বাড়ি ফেরার জন্য বাজারের ভেতর তিন রাস্তার মোড়ে একটি অপরিচিত সিএনজি গাড়িতে উঠেন। ওই সময় ননদকে একটি কাপড়ের ব্যাগ দোকানে রেখে এসেছে বলে এটি নিয়ে আসতে তাকে সেখানে পাঠান। কিন্তু ননদ ফিরে এসে দেখে গাড়ি আর ভাবী কেউ নেই সেখানে ।

ননদ পুতুল বলেন, ‘তখন আমার মোবাইলটিও ভাবীর কাছে থাকাতে ফোন করতে পারছিলাম না। ভাবছিলাম ভাবী বুঝি বাড়ি চলে এসেছে। কিন্তু এখানে আসেনি দেখে তাকে ফোন দিতে থাকি । কিন্তু ফোন আর উঠে না। আত্মীয় স্বজনদের কাছে ফোন দিয়ে খোঁজ নিলাম; কিন্তু কোথাও নেই। তার ব্যবহৃত মুঠোফোনটি একবার রিসিভ করা হয়েছিল। রিসিভকারী বলল, ‘পাঁচ লক্ষ টাকা যোগাড় কর, তাকে খাগড়াছড়ি নিয়ে যাচ্ছি’। এর পর থেকে ফোনগুলো বন্ধ।

এদিকে নিখোঁজ ফাতেমার দুই সন্তান বাবু(৮) ও মাহী(৫) মায়ের অপেক্ষায় প্রহর গুনছে। স্ত্রীর নিখোঁজে এমন ঘটনা শুনে প্রবাস থেকে স্বামী ইলিয়াছ গতকাল পাড়ি দিয়েছেন দেশের উদ্দেশ্যে। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত তিনি বাড়ি এসে পৌছেন নি।

পুলিশ তৎপর বিষয়টি নিয়ে। তারা ইতিমধ্যে নিখোঁজ হওয়া মহিলাটির কললিষ্ট চেয়ে আবেদন করেছেন। পুলিশ জানিয়েছেন, এটি কি অপহরণ, নাকি প্রেম ঘটিত ব্যাপার তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে তার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ফাতেমা আকতার একটি রোগেও ভুগছেন। যার কারণে তিনি মাঝে মাঝে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। তিনি যতেষ্ট আধুনিকও বটে, ছিলেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেইসবুকেও সক্রিয়।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত