টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আগামী মাসেই শুরু হচ্ছে ডোর-টু-ডোর বর্জ্য সংগ্রহ

চট্টগ্রাম, ০১  জুন (সিটিজি টাইমস):  চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ঘোষিত ভিশন ‘ক্লিন ও গ্রিন সিটি’ বাস্তবায়নে আগামী ১ আগস্ট থেকে ডোর-টু-ডোর বর্জ্য সংগ্রহ ও অপসারণ কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে।

বুধবার থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রাম (টিআইসি) মিলনায়তনে চসিকের পরিচ্ছন্ন বিভাগ, যান্ত্রিক ও বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা ও তত্বাবধায়ক, পরিদর্শক, সুপারভাইজার, চালকদের সাথে সমন্বয় বৈঠকে এ ঘোষণা দেন চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

মেয়র বলেন, ডোর-টু-ডোর আবর্জনা সংগ্রহ ও অপসারণ কাজের জন্য দুই হাজার সেবক নিয়োগ দেওয়া হবে। এর ফলে বছরে ৩০ কোটি টাকা অতিরিক্ত খরচ হবে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে ৪১টি ওয়ার্ডেই ডোর-টু-ডোর বর্জ্য সংগ্রহ করা হবে।

তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রামকে বিশ্বমানের দৃষ্টিনন্দন, শিল্প ও পর্যটকবান্ধব প্রাচ্যের রানির সাজে সাজিয়ে তোলার প্রয়াস চলছে। এ লক্ষ্যে পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম জোরদার করা হচ্ছে। বন্দরনগরী চট্টগ্রাম গুরুত্বের দিক থেকে অতীব গুরুত্বপূর্ণ। দেশের অর্থনীতির হৃদপিণ্ড এ চট্টগ্রামের সমুদ্রবন্দর, পাহাড়-পর্বত, সমতল ভূমি, কর্ণফুলী ও সমুদ্রসৈকতকে পরিকল্পিতভাবে উন্নত করা গেলে দেশ ও বিদেশে চট্টগ্রামের গুরুত্ব ও সুনাম আরও বাড়বে। এ লক্ষ্যে চসিক কর্মপরিকল্পনা নিতে যাচ্ছে।

মেয়র বলেন, চসিক কর্মকর্তা-কর্মচারীর সুযোগ-সুবিধা শতভাগ পূরণের বিনিময়ে সিটি করপোরেশন শতভাগ কাজ প্রত্যাশা করছে। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অবহেলা, গাফিলতি বা ধীরগতি বা অমনোযোগী বা দায়সারা লক্ষণ দেখা গেলে তার পরিণাম হবে কঠোর ও ভয়াবহ।

স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমনের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সচিব মোহাম্মদ আবুল হোসেন, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ, মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম, তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. মাহফুজুল হক, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মো. শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী, নির্বাহী প্রকৌশলী শামসুল হুদা সিদ্দিকী, পুল কর্মকর্তা সুদীপ বসাক, পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোরশেদুল আলম চৌধুরী প্রমুখ।

মতামত