টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

আনসার ক্যাম্পের অস্ত্র লুটে পাক ও মিয়ানমারের জঙ্গিরা!

কক্সবাজার প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ৩১  মে (সিটিজি টাইমস)::  টেকনাফ নয়াপাড়া শরণার্থী শিবিরের আনসার ক্যাম্পে হামলা, অস্ত্র লুট ও আনসার কমান্ডারকে হত্যার পাকিস্থানি জঙ্গি ও মিয়ানমারের বিছিন্নতাবাদী সংগঠন আরএসও’র সদস্যরা জড়িত রয়েছে।

হামলার ঘটনায় আটক টেকনাফের হ্নীলার রঙ্গিখালী এলাকার নুরুল আবছার প্রকাশ আবছার ডাকাতের আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ।

মঙ্গলবার দুপুরে কক্সবাজারের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সিরাজুদ্দিনের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে ঘটনার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ দিয়েছে আবছার।

জবানবন্দিতে সে জানায়, কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত মিলিয়ে প্রায় ২০ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে নিয়ে এই হামলায় চালায় স্বশস্ত্র জঙ্গীরা। মিয়ানমার থেকে ট্রলারে করে নাফ নদী হয়ে টেকনাফে প্রবেশ করে আনসার ক্যাম্পে হামলার পর ১১টি অস্ত্র লুট করে ঘটনার দিন রাতেই একই স্থান দিয়ে মিয়ানমারে নিয়ে যায় তারা।

চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত ডিআইজি সাখাওয়াত হোসেন বলেন, আবছার দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গা ডাকাতদের সঙ্গে মিলে বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকা- করে আসছিল। এরই সূত্র ধরে ১২ মে রাতে টেকনাফের নয়াপাড়া শরনার্থী শিবিরের আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে কমান্ডারকে হত্যা ও অস্ত্র লুট করে তারা। আর এতে আবাছারের সঙ্গে পাকিস্তান ও মিয়ানমারের জঙ্গীরাও জড়িত ছিল। ঘটনার দিন রাতেই লুণ্ঠিত অস্ত্রসহ আবছার জঙ্গীদের সঙ্গে মিয়ানমারে পালিয়ে যায়। তিনদিন পরে সে বাংলাদেশে ফিরে আসে। বিভিন্ন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে এবং প্রযুক্তির সহায়তায় আবছারকে আটক করা হয়। আবছারের কাছ থেকে ঘটনার দিন লুট হওয়া আনসার সদস্যের মোবাইল ও মানিব্যাগ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত