টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

এবার চট্টগ্রামে শিক্ষক লাঞ্ছিতের অভিযোগ

দক্ষিণ চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

চট্টগ্রাম, ২১ মে (সিটিজি টাইমস)::নারায়ণগঞ্জের পর এবার চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে মারধরের পর লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার দুপুরে জাফরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার দুপুরে জাফরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি নির্বাচন উপলক্ষে সভা আহবান করা হয়। সভায় সভাপতি পদে নুরুল মোস্তাফা ও আনোয়ারুল মোস্তাফা দুলালের নাম প্রস্তাব করা হয়। সভায় গোপন ব্যালটে নির্বাচনে ১১ ভোটের মধ্যে আট ভোট পেয়ে নুরুল মোস্তাফা সভাপতি নির্বাচিত হন। নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু কাউসার। আনোয়ারুল মোস্তাফা চৌধুরী সভাপতি নির্বাচিত না হওয়ায় সভায় উপস্থিত তার সমর্থকরা উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রহিম উদ্দিনের কক্ষের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে তাকে মারধর শুরু করে। তার কক্ষ ভাংচুর শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে কক্ষ থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে বাইরে লোক সমক্ষে তার জামা কাপড় ছিড়ে তাকে লাঞ্ছিত করা হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে প্রধান শিক্ষককে উদ্ধার করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রধান শিক্ষক রহিম উদ্দিন বলেন, ‘আনোয়ারুল মোস্তফা চৌধুরী হেরে যাওয়ায় তার সমর্থকরা ক্ষেপে উঠে আমাকে মারধর শুরু করে। আমার ইন্ধনে তিনি হেরে গেছেন দাবি করে তারা আমার কক্ষ থেকে আমাকে টেনে হিঁচড়ে বের করে জনসমক্ষে লাঞ্ছিত করে।’

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু কাউসার বলেন, ‘আনোয়ারুল মোস্তফা চৌধুরী হেরে যাওয়ায় তার সমর্থকরা প্রধান শিক্ষককে মারধর করেছে। তাকে লোক সমক্ষে লাঞ্ছিত করেছে। বিষয়টি নিয়ে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আনোয়ারুল মোস্তফা চৌধুরী  বলেন, ‘আমি সভায় উপস্থিত ছিলাম না। কারা সভাপতি পদে আমার নাম প্রস্তাব করেছে তাও জানি না। শুনেছি আমার নাম ভাঙ্গিয়ে কারা প্রধান শিক্ষককে মারধর করেছে। বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নিয়েছি।’

মতামত