টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

মমতার বাজিমাত, চার রাজ্যে বিজেপির শোচনীয় পরাজয়

mamta-worldচট্টগ্রাম, ১৯ মে (সিটিজি টাইমস): :পশ্চিমবঙ্গ, আসামসহ ভারতের পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগণনা শেষ হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গে মমতা ব্যানার্জির ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস আর আসামে বিজেপি জোট বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে। তবে একমাত্র আসাম ছাড়া অন্য ৪টি রাজ্যে কেন্দ্রীয় ক্ষমতাসীন দল বিজেপির শোচনীয় পরাজয় হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল আটটা থেকে এই ভোট গণনা শুরু হয় কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে। নিরাপত্তা এতটাই কড়া যে গণনা কেন্দ্রগুলোর বাইরে দলীয় কর্মী সমর্থকদের যে উপস্থিতি অন্যান্য বার চোখে পড়ত, এবার সেখানে শুধুই পুলিশে সয়লাব।

পশ্চিমবঙ্গ
পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে। ২৯৪টি আসনের মধ্যে দলটি ২১৩টি আসন পেয়েছে। ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস পেয়েছে ৪৫টি আসন। বামপন্থী সিপিএম ২৯টিতে এবং কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজিপি ৭টি আসন পেয়েছে।

ভারতে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় ফেরার পর রাজ্যের মানুষকে অকুণ্ঠ ধন্যবাদ দিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জি।

কলকাতায় নিজের বাসভবনে এদিন দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, গত দুই বছর ধরে তার সরকারের বিরুদ্ধে লাগাতার ষড়যন্ত্র হয়েছে।

তার দাবি, এই ভোটের আগে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে দুর্নীতির ইস্যু তোলা হয়েছিল, কিন্তু মানুষ দুর্নীতির অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে। এমন কী যারা দুর্নীতির ইস্যু তুলেছেন তাঁদের ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বৃহস্পতিবার নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর তৃণমূল নেত্রী ফের নিশানা করেছেন কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীকেও, যারা গত দুই মাস ধরে রাজ্যে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল।

মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, ভোটের সময় এই কেন্দ্রীয় বাহিনীর মাধ্যমেই সন্ত্রাসের আবহ তৈরি করা হয়। তিনি আরো বলেছেন, ভোটের আগে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা হয়েছে। তবে একই সঙ্গে তিনি বলেছেন ভুল থেকে তারা শিক্ষা নেবেন। স্বীকার করেছেন, রাজ্য পরিচালনার ক্ষেত্রে কোনো কোনো ক্ষেত্রে ভুল হয়েও থাকতে পারে।

বিরোধী জোটকে আক্রমণ করে মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেন, বামপন্থীদের সঙ্গে জোট কংগ্রেসের রাজনৈতিক ভুল হয়েছিল। একই সঙ্গে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করার জন্য সিপিএমকেও বিঁধেছেন তিনি। বলেছেন, এই ভোটের ফলে জাতীয় ক্ষেত্রে কংগ্রেস ও রাজ্যে সিপিএমের ক্ষতি হয়েছে। মমতা ব্যানার্জি জানিয়েছেন, আগামীকাল শুক্রবার তৃণমূলের নবনির্বাচিত পরিষদীয় দলের বৈঠক হবে। বৈঠকে নির্বাচিত হবেন পরিষদীয় দলনেতা। কালই রাজ্যপালের কাছে সরকার গঠনের দাবি জানানো হবে।

এদিকে মমতাকে ফোন করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার সকালে গণনা শুরু হতেই একের পর এক কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের জয়ের খবর আসতে শুরু করে।

বেলা যত গড়িয়েছে, তৃণমূল সমর্থকদের হাসি তত চওড়া হয়েছে। তারই মধ্যে মমতাকে ফোন করেন মোদি। টুইট করে নিজেই সে কথা জানিয়েছেন।

তিনি লিখেছেন, ‘মমতাজির সঙ্গে কথা হয়েছে। অসাধারণ এই জয়ের জন্য তাকে অভিনন্দন জানিয়েছি।’ এর পরেই তিনি জানিয়েছেন, ‘রাজ্যে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় আসার জন্য তার প্রতি শুভ কামনা রইল।’

আসাম
বাংলাদেশের সীমান্ত সংলগ্ন রাজ্য আসামে কংগ্রেসকে হারিয়ে জয় পেয়েছে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজিপি। ভোট গণনায় ১২৬ আসনের মধ্যে ৮৭টি আসনে বিজিপি, ২৩টিতে কংগ্রেস, ১৪টিতে এইউডিএফ এবং অন্যান্য দল ২টি আসন পেয়েছে।

তামিল নাড়ু
তামিল নাড়ুতে ২৩৪ আসনের মধ্যে এরই মধ্যে ২৩২ আসনের ফলাফল স্পষ্ট হয়েছে। এর মধ্যে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী জয়জলিতার এডিএমকে দল ১২৬টি আসন, ডিএমকে ১০৫ আসন, পিএমকে ২, ডিএমডিকে ১ এবং অন্যান্য মাত্র ১টি আসন পেয়েছে।

কেরালা
কেরালায় ১৪০টি আসনের মধ্যে বামপন্থী দল এলডিএফ ৯১, ইউডিএফ ৪৭, বিজেপি ১ এবং অন্যান্য ১ টি আসন পেয়েছে।

পুন্ডচেরি
পুন্ডচেরির ৩০ আসনের মধ্যে ১৪টিতে কংগ্রেস, ১০টিতে এআইএনআরসি, ৫টিতে এডিএমকে এবং অন্যান্য একটিতে জয়ী হয়েছে।

ভোট গণনার প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, একমাত্র আসাম ছাড়া অন্য কোনো রাজ্যে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি কোনো অবস্থানে নেই। ভোটের হিসেবে দলটির শুধু ভরাডুবিই হয়নি বরং অনেকটাই লাপাত্তা অবস্থা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত