টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

সীতাকুণ্ডে পরিবেশ আইন লঙ্ঘন করে সড়কের জায়গায় নির্মিত হচ্ছে স্থাপনা

মোঃ ইমরান হোসেন
সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 

sitakund-sdk-hiচট্টগ্রাম, ০৯ মে (সিটিজি টাইমস)::  সীতাকুণ্ডে পরিবেশ আইন লঙ্ঘন করে সড়কের জায়গায় উপর স্থাপনা নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রশাসন চুপ থাকায় সর্বক্ষেত্রে আলোচিত হয়ে উঠেছে বিষয়টি। তবে মোটা অংকের ঘুষ-বানিজ্য হওয়ায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসন চুপ রয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।

কিছুদিন ধরে বাড়বকুণ্ড পিএইচপি গ্লাস ফ্যাক্টরী সংলগ্ন মহাসড়কের পশ্চিম পাশে সড়কের জায়গা দখল করে স্থাপনা নির্মানের কাজ শুরু করেছে একটি মহল। কোনো প্রকার আইনের তোয়াক্কা না করে জোরপূর্বক সড়ক-জনপদের পানি নিস্কাশনের জায়গায় মাটি ফেলে চলছে ভরাটের কাজ। ইতিমধ্যে সড়ক-জনপদের প্রায় এক একর জায়গা দখলে নিয়ে হলেও চুপচাপ রয়েছে সংশ্লিষ্ট দপ্তর। সড়ক-জনপদের জায়গা দখল ও পুকুর ভরাট করে স্থাপনা নির্মাণ হচ্ছে জানার পরও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন চুপ থাকায় আলোচিত হয়ে উঠেছে দখলের ঘটনা।

বাড়বকুণ্ড চারের কান্দি গ্রামের স্থানীয় দোকানদাররা বলেন,‘ জোরপূর্বক সড়কের জায়গা দখল করে নেয়ায় এলাকার পানি নিস্কাশনের পথ অবরোদ্ধ হয়ে পড়ছে। এছাড়া দীর্ঘদিনের পুকুরটি ভরাট করার ফলে পানি সংকট দেখা দিতে পারে। অথচ বিষয়গুলো নজরে আসলেও মোটা অংকের বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তর কার্যকর ব্যবস্থা নেয় বলে জানান তারা। তবে সড়ক-জনপদের জয়গা দখলের বিষয়টি স্বীকার করা হলেও ভরাটকৃত জায়গায় কোনো পুকুর নেই বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃৃ নাজমুল ইসলাম ভ’ইয়া।

এদিকে সড়ক-জনপদ বিভাগের হেলীয়পনায় বে-দখল হয়ে যাচ্ছে সড়ক-জনপদের খালি জায়গাটি। বিষয়টি জানার পরও ব্যবস্থা গ্রহনে গড়িমসি করছে স্থানীয় সড়ক-জনপদের কর্মকর্তারা। ফলে আইনের তোয়াক্কা না করে ষ্টেশন নির্মানে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে দখলদাররা। অথচ ফিলিং স্টেশন নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হতে অনুমোদন নেয়ার কথা বলা হলেও কাগজপত্র দেখাতে পারেনি মালিকপক্ষ।

এ বিষয়ে সড়ক-জনপদ বিভাগের সীতাকুণ্ডস্থ উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কার্যালয়ের প্রকৌশলী মো. জিয়া উদ্দিন বলেন,‘ সড়ক-জনপদ বিভাগের অনুমোদন না নিয়ে জোরপূর্বক কে,আই,এ ফিলিং ষ্টেশন নিমার্ণের কাজ করছে দখলদাররা। বারবার চিঠি দিয়ে অবহিত করা হলেও মানছে না নিষেধাজ্ঞা।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত