টক অব দ্য চট্টগ্রাম
Ad2

চট্টগ্রামের ২৮ ইউপিতে রাত পোহালেই ভোটযুদ্ধ

চট্টগ্রাম, ০৬ মে (সিটিজি টাইমস)::  রাত পোহালেই (শনিবার) চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনের ভোটযুদ্ধ। এ দফায় চট্টগ্রামের রাউজান ও হাটহাজারীর ২৮ ইউপিতে ভোট হবে। সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হবে। চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচনী এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী টহল শুরু করেছে। এছাড়া বিচারিক ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরাও মাঠে রয়েছেন। নির্বাচনী এলাকায় সব ধরনের যান চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করা হয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে নির্বাচনী এলাকায় সব ধরনের প্রচার।

জানা গেছে, রাউজান উপজেলায় ৩টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হচ্ছে বাকি ১১টি ইউনিয়নে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হওয়াতে চেয়ারম্যান ছাড়া সংরক্ষিত সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদে ভোটগ্রহন চলবে।হাটহাজারী উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহন করা হবে।

আজ শুক্রবার বিকেল থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তায় ব্যালট পেপারসহ ভোট সরঞ্জাম ভোট কেন্দ্রগুলোতে পৌঁছানো হচ্ছে। দুপুর থেকে চলছে নির্বাচনী সরঞ্জাম বিতরণ।

রাউজানে শনিবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১৪ ইউপির মধ্যে তিনটিতে চেয়ারম্যান পদে ও ১৬৮ মেম্বার পদের মধ্যে মাত্র ৫৬ পদে মেম্বার নির্বাচন হতে যাচ্ছে। বাকি ১১ জন চেয়ারম্যান ও ১১২ জন মহিলা-পুরুষ মেম্বার পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করায় সেগুলোতে নির্বাচনের প্রয়োজন পড়ছে না। যে তিনটি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হবে সে ইউনিয়নগুলো হলো- নোয়াপাড়া, বিনাজুরী ও কদলপুর।

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, রাউজানের ১৪ ইউনিয়ন, হাটহাজারীর ১৪টি সহ মোট ২৮টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে রাউজানে ১৪ ইউনিয়নের মধ্যে ১১টিতে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে না। এসব ইউনিয়নে সরকারি দলীয় প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হতে চলেছেন। এসব ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ভোটগ্রহণ হবে না। তিন ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ভোটগ্রহণ ।

চট্টগ্রাম জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) কাজী মোহাম্মদ আবদুল আওয়াল জানান, সুষ্ঠু পরিবেশে ভোটগ্রহণের লক্ষ্যে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। প্রতিটি ভোটকেন্দ্র একজন অফিসারের নেতৃত্বে ৫-৬ জন অস্ত্রধারী পুলিশ ও আনসার, এপিবিএন বাহিনী মিলে ২০ জন করে সদস্য নিয়োজিত থাকবেন। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েন থাকবে। এছাড়াও প্রতি তিন কেন্দ্রের জন্য এক প্লাটুন করে মোবাইল টিম ও স্ট্রাইকিং ফোর্স মাঠে থাকবে। এছাড়াও বিজিবি, র‌্যাব ও মোবাইল কোর্ট দায়িত্ব পালন করবেন।

সিটিজি টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

মতামত